আজকের বার্তা | logo

৯ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৪শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

বরিশাল নার্সিং কলেজে অচলাবস্থা, ভবিষ্যত কী

বরিশাল নার্সিং কলেজে অচলাবস্থা, ভবিষ্যত কী

এম বাপ্পি ॥ অচলাবস্থা বিরাজ করছে বরিশাল নার্সিং কলেজে। দাবি আদায়ে শিক্ষার্থীরা একাডেমিক কার্যক্রম বর্জন করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ইতিমধ্যে আন্দোলনকারীরা ক্লাস-পরীক্ষায় যোগদানে বিরত রয়েছেন। পালন করছেন না ইন্টার্নশিপের আওতায় রুটিন দায়িত্বও। ফলে বিরূপ প্রভাব পড়েছে কলেজের শিক্ষা ব্যবস্থায়। হাসপাতালের চিকিৎসাসেবাও বিঘিœত হচ্ছে। যদিও ইতিমধ্যে বিষয়টি উচ্চপদস্থদের অবহিত করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন কলেজ কর্তৃপক্ষ। তবে এখন পর্যন্ত দাবি পূরণে কোনোপ্রকার আশ^াস না মেলায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠছেন শিক্ষার্থীরা। দিয়েছেন কঠোর কর্মসূচি পালনের হুঁশিয়ারি। এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা। জানা গেছে, নার্সিং পেশায় স্বতন্ত্র পেশাগত ক্যাডার সার্ভিস (বিসিএস সেবা) চালু করাসহ ৪ দফা দাবিতে গত ৬ জুলাই থেকে ক্লাস-পরীক্ষা ও পেশাগত দায়িত্ব বর্জন করে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছেন নার্সিং কলেজের শিক্ষার্থীরা। ইন্টার্নভাতা ও স্টাইপেন্ড বৃদ্ধি, নার্সিং কলেজের ক্লিনিক্যাল প্র্যাকটিস পদ সৃষ্টি ও পূরণ এবং সংশোধন না করা পর্যন্ত পুরাতন কারিকুলাম চালু রাখার দাবি শিক্ষার্থীদের। গতকাল মঙ্গলবার ছিল আন্দোলনের ১১ তম দিন। সরেজমিনে দেখা গেছে, কলেজ ক্যাম্পাস অনেকটাই ফাঁকা। আন্দোলনের অংশ হিসেবে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করায় শিক্ষার্থী উপস্থিতি কম। শিক্ষকরা অলস সময় পার করছেন। ইতস্তত ফোরাফেরা করছেন কয়েকজন শিক্ষার্থী। আলাপ হয় ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী রিজন রায়ের সাথে। তিনি জানান, তাদের দাবিগুলো সমসাময়িক এবং যৌক্তিক। কলেজের প্রায় ৪ হাজার শিক্ষার্থীর সবাই-ই এই দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, ইন্টার্নশিপ চলাকালে তাদের মাত্র ৬ হাজার টাকা সম্মানী দেয়া হয়। যা একেবারেই যুক্তিযুক্ত নয়। একজন পূর্ণকালীন নার্সের বেসিক বেতন যেখানে ১৬ হাজার (সর্বমোট ২৮ হাজার) টাকা, সেখানে একই দায়িত্ব পালন করে একজন ইন্টার্ন পাচ্ছেন মাত্র ৬ হাজার টাকা। এছাড়া ২০০৭ সালে ৯শ টাকা থেকে ২ হাজার টাকায় উন্নীত করা স্টাইপেন্ডের অর্থের পরিমাণ আজও বাড়েনি। বর্তমান দুর্মূল্যের বাজারে এই পরিমাণ অর্থ নিতান্তই কম। এই সামান্য অর্থে দৈনন্দিন ব্যয়ভার বহন করতে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। এধরনের বৈষম্যের অবসান চেয়ে তারা ইন্টার্ন ফি এবং স্টাইপেন্ড বাড়ানোর দাবি জানাচ্ছেন। ৪র্থ বর্ষের অপর শিক্ষার্থী রাজিব কুমার মন্ডল বলেন, স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন এবং যুগের সাথে সামঞ্জস্য রাখতে ক্লিনিক্যাল পদ সৃষ্টি ও পদায়ন এবং স্বতন্ত্র বিসিএস পদ্ধতি চালু এখন সময়ের দাবি। তাদের ৪ দফা দাবিতে এ বিষয় দুটিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। অপর দাবিটি কারিকুলাম বিষয়ক। রাজিব জানান, কর্তৃপক্ষ সংশোধিত কারিকুলাম প্রণয়ন করতে চাচ্ছেন। এটা একেবারেই কাম্য নয়। কারণ শিক্ষাবর্ষের ৬/৭ মাস পার হয়ে যাবার পর ১ম বর্ষের শিক্ষার্থীদের অনেকেই নতুন কারিকুলামের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারবেন না। বিষয়টির বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে তাদের ফলাফলে। এ কারণে এবছর তারা পুরাতন কারিকুলামই বহাল রাখার দাবি জানিয়েছেন। আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা দাবিগুলোর গভীরতা অনুভব করে মেনে নেবেন। প্রসংগত, দাবিকৃত ৪ দফা আদায়ে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বুধবার সকাল ১১টায় বরিশালসহ দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবেন নার্সিং কলেজের শিক্ষার্থীরা। এদিকে একটি সূত্র দাবি করেছে, নার্সিং অব মিডওয়াফারির নবনিযুক্ত ডিজি বর্তমানে দেশের বাইরে আছেন। তবে শীঘ্রই কর্মক্ষেত্রে যোগদান করবেন। তারপরেই হয়ত শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে। বরিশাল নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ তাহমিনা আক্তার জানান, ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের কিছুটা ক্ষতি হয়ত হচ্ছে তবে তা সাময়িক। অতিরিক্ত ক্লাসের মাধ্যমে ক্ষতিটুকু পুষিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে মনে করেন তিনি। শিক্ষার্থীদের দাবির বিষয়ে অধ্যক্ষ বলেন, তিনি প্রতিনিয়ত ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করছেন। শীঘ্রই হয়ত এই সমস্যা থেকে উত্তরণ ঘটবে।

Share Button


দৈনিক আজকের বার্তা

প্রকাশক: মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক: কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল

যোগাযোগ

ঠিকানা: ৫২৫ ফজলুল হক এভিনিউ (কাকলীর মোড়), বরিশাল।
বাণিজ্যিক বিভাগ: 043163954
মোবাইল: 01916582339

Website Design & Developed By

আজকের বার্তার প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।