আজকের বার্তা | logo

১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

স্ত্রীর পদে চাকরি করে কোটিপতি স্বামী!

স্ত্রীর পদে চাকরি করে কোটিপতি স্বামী!

রাঙ্গাবালী প্রতিনিধি ॥ এ যেন কোন নিয়ম নীতিই নেই! স্ত্রীর বদলে চাকরি করছেন স্বামী। যোগদানের শুরু থেকে একদিনও দেখা যায়নি স্ত্রীকে। অফিস কক্ষে গিয়ে অফিস চেয়ারেও সবসময় দেখা যায় স্বামীকে। স্ত্রীর চাকরির সামান্য বেতন দিয়ে ঘর ভাড়াসহ উপজেলা সদরে থাকাটাই যার জন্য কষ্টকর হওয়ার কথা, তিনি এখন কোটিপতি। কষ্টতো দূরে থাক, বিলাসিতারই যেন শেষ নেই। স্ত্রীর বেতন নির্ভর লোকটিই এখন উপজেলা সদরে অর্ধকোটি টাকার সম্পদ করেছেন নিজের ও স্ত্রীর নামে। ভিআইপি বাসা ভাড়া নিয়েও থাকছেন উপজেলা সদরে। এমন অভিযোগ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্য সহকারী ঝুমুর রানী ও তার স্বামী শুভ সিকদারের বিরুদ্ধে। জানাগেছে, ২০১৬ সালের ১৬ আগস্ট সেতু-কালভার্ট নির্মাণ প্রকল্পের অধিনে ঝুমুর রানীকে রাঙ্গাবালী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে কার্য সহকারী পদে নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু যোগদানের ৩ বছরে একদিনও অফিস করেননি এমন অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। ঝুমুর রানীর বদলে চাকরি করছেন তার স্বামী শুভ সিকদার। স্থানীয়রা জানান, ২০১২ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি রাঙ্গাবালী উপজেলা প্রতিষ্ঠিত হয়। উপজেলার শুরুলগ্ন থেকেই প্রকল্প বাস্তবান কর্মকর্তা (পিআইও) হিসেবে আছেন বর্তমানে অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা তপন কুমার ঘোষ। তার ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে ওই অফিসে শুরু থেকেই ছিলেন পিরোজপুরের শুভ শিকদার। কোন চাকরি ছাড়াই দিনের পর দিন পিআইও’র অফিসে থাকতেন এবং পিআইওর সকল কাজই করতেন শুভ। সরকারি ফাইলসহ যাবতীয় সব কিছুই আছে তার দায়িত্বে। এসব কারণে পিআইওর ‘কামাইপুত’ হিসেবে লোকালয়ে পরিচিত ছিলেন শুভ সিকদার। পরে এ অপবাদ ঢাকতে পিআইও ও শুভ হাতে নেন নতুন কৌশল। ২০১৬ সালে যখন সেতু-কালভার্ট প্রকল্পের অধীনে কার্য সহাকারী পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়, তখন পিআইও তপন কুমার ঘোষ তার কামাইপুত শুভ শিকদারের ওই অফিসে থাকাকে বৈধতা করতে শুভ’র স্ত্রী ঝুমুর রানীকে নিয়োগের ব্যবস্থা করেন। এরপর থেকেই বেপরোয়া হয়ে ওঠেন শুভ। স্ত্রীর চাকরির সুযোগে অফিসের চেয়ার দখল করে এবং পিআইওর’ সাথে যোগসাজশে দুর্নীতির পরিমাণও বাড়িয়ে দেন তিনি। টিআর, কাবিখা, কাবিটা থেকে শুরু করে সকল উন্নয়ন কর্মকা-ে অনিয়ম করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে। চাকরিজীবী না হয়েও অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তাদের জিম্মি করে রেখেছেন শুভ এমন অভিযোগও রয়েছে। পিআইও’র ঘনিষ্ঠ হওয়ায় শুভ’র বিরুদ্ধে মুখ খুলতেও ভয় পাচ্ছেন অফিসের অন্যরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিসের একজন বলেন, শুভ সিকদার আমাদের অফিসের কেউ নন। কিন্তু তার সকল কথা আমাদের শুনতে হয়। পিআইও সপ্তাহের একদিনও থাকেন না বললেই চলে। সে সময় শুভই পিআইওর ভূমিকায় আমাদের দিয়ে কাজ করান।  তার কথা না শুনলে পরিণতি ভয়াবহ হয়ে ওঠে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাঙ্গাবালী উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এক সদস্য বলেন, সকল উন্নয়ন প্রকল্প থেকে পিআইও তপন কুমার ঘোষকে পারসেন্টিজ দিতে হয়। প্রতিটি ইউনিয়ন ঘুরে ঘুরে টাকা কালেকশন করেন তার অফিসের শুভ সিকদার। শুভ পিআইও অফিসের কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারী নন, তবুও তাকে স্যার বলে ডাকতে হয় আমাদের। তা নাহলে ফাইল ঝুলিয়ে রাখেন দিনের পর দিন। ২০১২ সাল থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত পিআইও তপন কুমার ঘোষ রাঙ্গাবালীতে আছেন। তিনি এখানে যোগাদানের সময়ই সাথে করে পিরোজপুর থেকে নিয়ে আসেন শুভকে। জানতে চাইলে রাঙ্গাবালী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তপন কুমার ঘোষ বলেন, শুভ আমাদের অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারী না হলেও আমাদেরকে হেল্প করেন। তার স্ত্রী যদি অফিসে না এসে থাকেন তাহলে আপনারা তার বিরুদ্ধে নিউজ করে দিন। আমার কোন আপত্তি নেই। রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান জানান, স্ত্রীর চাকরিতে স্বামীর প্রক্সি দেয়ার কোন নিয়ম নেই। এটি সম্পূর্ণ নিয়মবহির্ভূত কাজ। আমরা তদন্ত করে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব।

Share Button


দৈনিক আজকের বার্তা

প্রকাশক: মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক: কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল

যোগাযোগ

ঠিকানা: ৫২৫ ফজলুল হক এভিনিউ (কাকলীর মোড়), বরিশাল।
বাণিজ্যিক বিভাগ: 043163954
মোবাইল: 01916582339

Website Design & Developed By

আজকের বার্তার প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।