আজকের বার্তা | logo

১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

‘ছেলেধরা’ সন্দেহে কাঠুরিয়াকে মারধর, গুজব ছড়ানোয় আটক শিক্ষক

‘ছেলেধরা’ সন্দেহে কাঠুরিয়াকে মারধর, গুজব ছড়ানোয় আটক শিক্ষক

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলায় ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে এক কাঠুরিয়াকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। আর গুজব ছড়ানোয় গ্রেপ্তার হয়েছেন এলাকার পল্লী উন্নয়ন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের সহকারী শিক্ষক আব্দুল মমিন।গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার চৌমহনী বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গুজব ছড়ানোয় বাদি হয়ে শিক্ষক আব্দুল মমিনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, আলাউদ্দিন (৫০) নামে ভুক্তভোগী কাঠুরিয়া বৃহস্পতিবার গাছ কাটার করাত ও কুড়াল নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় তাকে দেখে পল্লী উন্নয়ন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের শিক্ষার্থীরা ‘ছেলেধরা’ বলে চিৎকার শুরু করে। এ সময় তিনি রেগে গিয়ে শিক্ষার্থীদের দিকে তেড়ে যান।স্কুলের ভেতর ঢোকার পর সহকারী শিক্ষক আব্দুল মমিন তাকে ধরে চড়-থাপ্পড় দিয়ে বের করে দেন। এলাকাবাসী জানতে পেরে আলাউদ্দিনকে দড়ি দিয়ে বেঁধে আবারও স্কুলের ভেতর এনে মারধর করে।এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুব্ধ জনতা আলাউদ্দিনকে মারধর করায় স্কুলে হামলা চালিয়ে সহকারী শিক্ষক আব্দুল মমিনসহ উপস্থিত সকলকেই অবরুদ্ধ করে রাখে।

খবর পেয়ে রাত সাড়ে আটটায় ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। সেখান থেকে আলাউদ্দিনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। এবং আব্দুল মমিনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুভাষ চন্দ্র সরকার জানান, আলাউদ্দিনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে সেখানেই ভর্তি আছেন তিনি।

উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘গুজব ছড়িয়ে নিরীহ ব্যক্তিকে মারপিট করার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আটক শিক্ষক মমিনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। পরবর্তী ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।’

Share Button


দৈনিক আজকের বার্তা

প্রকাশক: মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক: কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল

যোগাযোগ

ঠিকানা: ৫২৫ ফজলুল হক এভিনিউ (কাকলীর মোড়), বরিশাল।
বাণিজ্যিক বিভাগ: 043163954
মোবাইল: 01916582339

Website Design & Developed By

আজকের বার্তার প্রকাশিত-প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।