চরফ্যাশনে ১০ দিনেও গ্রেফতার হয়নি খাদিজা হত্যা মামলার আসামী

প্রকাশিত: ৪:৫৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

এম,নোমান চৌধুরী, চরফ্যাশন প্রতিনিধি ::

চরফ্যাশন পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডে বিল থেকে উদ্ধার হওয়া মৃত খাদিজা হত্যার ঘটনার ১০ দিনেও কোন আসামী কে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

গত ১২ সেপ্টেম্বর চরফ্যাশনে উদ্ধার হওয়া এক তরুণীর লাশ শনাক্তকরণে অনলাইন, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া যে তথ্য প্রকাশ করেছে অবশেষে থানা পুলিশের তদন্তে সেটাই সত্যি প্রমাণিত হলো। উদ্ধার হওয়া তরুণী চরফ্যাশন জাহানপুর ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ডের ফারুক মিয়ার মেয়ে খাদিজা।

মেয়ের এমন রহস্যময় নৃশংস হত্যার খবর শুনে একনজর দেখতে আসেনি বা না চেনার ভান করে লাশ গ্রহণও করেননি তার বাবা। অবশ্য যে মা -হারা মেয়েকে বাবা মধ্যযুগীয় কায়দায় পায়ে শিকল বেঁধে নির্যাতন করতে পারেন, মেয়ের অমতে বয়স্ক পুরুষের নিকট অর্থের লোভে বিয়ে দিতে পারেন, নির্যাতনের সময় মেরে ফেলার হুমকি দিতে পারেন, এমন পাষ- পিতার মেয়ের লাশ গ্রহণ না করাটাই স্বাভাবিক। মেয়ের নিশ্চিত মৃত্যু হয়েছে এ খবর শুনে যে বাবা বাড়ি থেকে পালিয়ে যান, এখন পর্যন্ত মেয়ের বা মামলার কোন খবর নেননি, সে বাবা কখনোই মেয়ের খুনের দায় এড়াতে পারেন না। পুলিশের তদন্তে প্রকৃত খুনের রহস্য এবং খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন চরফ্যাশনের সাধারণ জনগণ।

জানা গেছে, খুনের রহস্য ১০ দিনেও উদঘাটন হয়নি। তবে লাশ ময়নাতদন্ত শেষে বেওয়ারিশ হিসেবে ভোলা আঞ্জুমানে দাফন করা হলেও এখন তদন্ত চলমান অবস্থায় লাশের পরিচয় পাওয়া গেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, চরফ্যাশন থানা পুলিশের এক সদস্য স্ব প্রণোদিত হয়ে খাদিজাকে খুন এবং লাশ গোপন করার অভিযোগ এনে অজ্ঞাত আসামি করে চরফ্যাশন থানায় ১২ সেপ্টেম্বর একটি মামলা দায়ের করেন। (মামলা নং ০৭ ধারা ৩০২/২০১. ৩৪ পেনাল কোড)। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ নাজমুল ইসলাম জানান, মামলাটি তদন্তাধীন, কোনো আসামি গ্রেপ্তার হয়নি, কয়েক জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে৷ তবে মেয়েটির পরিচয় পাওয়া গেছে৷

চরফ্যাশন থানার অফিসার ইনচার্জ বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক৷ আমরা তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন করে প্রকৃত খুনিদের দ্রুত গ্রেপ্তারের সর্বাত্মক চেষ্টা করব৷ এ মামলার অগ্রগতি নিয়ে আমাদের কোনো গাফিলতি বা সময় ক্ষেপণের সুযোগ নেই।

Sharing is caring!