করোনায় আক্রান্ত আগৈলঝাড়ার রাশিদার দুই দিনে দুই রিপোর্ট


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৫:৩৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩০, ২০২০

তপন বসু, আগৈলঝাড়া সংবাদদাতা ॥

মাত্র দুই দিনেই কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী সুস্থ! এটা কোন বিজ্ঞাপন নয়, তাজ্জব হওয়ার মতো পুরো বিষয়টি সত্য। কোভিড-১৯ আক্রান্ত এক কর্মজীবী নারীর দুই জেলার মধ্যে দুই দিনের ব্যবধানে ল্যাবরেটরির পরীক্ষার রিপোর্টে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের ফুল্লশ্রী গ্রামের বাসিন্দা রাশিদা রোক্সানা তার কর্মস্থল কোটালীপাড়ায় উপসর্গ বিহীন অবস্থায় ২৫ জুলাই কোভিড-১৯ পরীক্ষায় নমুনা প্রদান করলে ২৬ জুলাই ফরিদুপর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরীক্ষায় তার করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে।

রাশিদা রোক্সানার বাবার বাড়ি আগৈলঝাড়া হওয়ায় কোটালীপাড়ার রিপোর্ট পাওয়ার এক দিন পরে ২৭ জুলাই আগৈলঝাড়া উপজেলা হাসপাতালে পুনরায় পরীক্ষার জন্য নমুনা প্রদান করেন। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড-১৯ পরীক্ষার ২৮ জুলাইর রিপোর্টে রাশিদা রোক্সানার করোনা ভাইরাস নেগেটিভ এসেছে।

দুই দিনের ব্যবধানে দুই জেলার দুই রকমের রিপোর্ট নিয়ে চরম বিভ্রান্তিতে পড়েছেন রাশিদা রোক্সোনাসহ ওই বাড়ির বাসিন্দারা। কেনটি মেনে চলবেন তিনি? এমন প্রশ্নের উত্তরে আগৈলঝাড়া উপজেলা হাসপাতাল প্রধান ডা. বখতিয়ার আল মামুন জানান, চিকিৎসা বিজ্ঞানে একটা কথা রয়েছে আর তা হলো, ফলস পজেটিভ এবং ফলস নেগেটিভ। এমন ঘটনা প্রতিটি মেশিনে একটি হয়ে থাকতে পারে। তবে সর্বশেষ পরীক্ষায় রাশিদা রোক্সানার নেগেটিভ রিপোর্ট আসায় তিনি করোনা মুক্ত হিসেবে বিবেচিত হবেন।

বরিশাল সিভিল সার্জন ডা. মনোয়ার হোসেন বলেন, মেডিকেল সাইন্সে কিছু কথা থাকে যার কোন ব্যাখ্যা থাকে না। যে মেশিন যে রকম রিপোর্ট দিয়েছে সেই অনুযায়ী রিপোর্ট প্রদান করা হয়েছে। এর বেশী কিছু তিনি বলতে রাজি হননি।