৪ ব্যাংকে কাঠালিয়ার এসিল্যান্ডের ঘুষের টাকা জমা : জেলা প্রশাসকের শোকজ

প্রকাশিত: ৯:০৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২, ২০২১

মোঃ খাইরুল আমিন ছগির, কাঠালিয়া প্রতিনিধি ॥ ঝালকাঠির কাঠালিয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমিত সাহা বেসরকারি চারটি ব্যাংকের মাধ্যমে নিকট আত্মীয়, বিভিন্ন ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে ঘুষের টাকা জমা করে আসছেন। অতি সম্প্রতি ভ্রাম্যমাণ আদালতের ভয় দেখিয়ে ঘুষ গ্রহণের ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হলে জেলা প্রশাসক এসিল্যান্ড সুমিত সাহা ও নাজির মাইনুলকে শোকজ করেন। ২৮ জানুয়ারী জেলা প্রশাসক মোঃ জোহর আলীর স্বাক্ষরিত তিন কার্যদিবসের মধ্যে এ শোকজের জবাব দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

 

জেলা প্রশাসক অফিসের স্মারক নং ৩১.১০.৪২০০.০১২.০৪.০২৬.১৮-১০১, তারিখঃ ২৮ জানুয়ারী ২০২১ কারণ দর্শানো নোটিশে উল্লেখ রয়েছে, মোবাইল কোর্টকে যেমনি প্রশ্নবিদ্ধ করেছে, তেমনি প্রশাসন ক্যাডারের ভাবমূর্তিও ভীষণভাবে ক্ষুণœ হয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হয়। আপনি এর দায়ভার কোনো ভাবেই এড়াতে পারেন না। আপনার এহেন কর্মকা- সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর বিধি ২ (খ) অনুযায়ী অসদাচরণের সামিল। এমতাবস্থায়, আপনার এহেন কর্মকা-ের জন্য কেন আপনার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বরাবরে সুপারিশ করা হবে না তার সন্তোষজনক ব্যাখ্যা ৩ কার্যদিবসের মধ্যে (২ ফেব্রুয়ারী) দেয়ার নির্দেশ দেয়া হলো।

 

দীর্ঘ ২২ বছর পর ২০২০ সালের ৮ অক্টোবর সুমিত সাহা সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে কাঠালিয়া উপজেলায় যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকে তিনি ভূমি অফিস ঘুষের আখড়ায় পরিণত করেছেন। এসিল্যান্ড সুমিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, জমির নামজারী, সই মোহর পর্চা, জলাশয় সংস্কার (খাল ও পুকুর) প্রকল্প থেকে, গাছ বিক্রিসহ ভূমি সংক্রান্ত বিভিন্ন অভিযোগ ও ফাইল থেকে ঘুষ গ্রহণ করে থাকেন। জৈনিক মোঃ অলিউল্লাহ আহাদ জনপ্রশসন মন্ত্রণালয়ে সুমিত সাহার ঘুষ বাণিজ্যের বিভিন্ন দিক উল্লেখ করে প্রতিকার চেয়ে সচিব বরাবরে ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারী একটি অভিযোগ করেন।

 

অপরদিকে একটি সূত্র থেকে প্রাপ্ত নথিপত্র ঘেটে দেখা গেছে, সুমিত সাহার ভাই রবিন সাহার ওয়ান ব্যাংক লিঃ, হিসাব নম্বর-০১৫২০৫০০২৫৩৭৪ এ গত ২৪ জানুয়ারী ২০২১ তারিখ এক লক্ষ টাকা জমা করা হয়েছে, একই দিনে অন্য এক নিকট আত্মীয় সিবানী সাহা, যমুনা ব্যাংক লিঃ, হিসাব নম্বর-০০৮৭০৩১০০০৮৬১৯ এ দুই লক্ষ টাকা পাঠানো হয়েছে। এসিল্যান্ডের নিজ একাউন্ট ডাচ বাংলা ব্যাংক লিঃ হিসাব নং ১১৮১০৫৫৫৩২৮০০ এ গত ২৩ ডিসেম্বর ২০২০ ত্রিশ হাজার, ৩১ ডিসেম্বর চল্লিশ হাজার ও ১০ ডিসেম্বর পঞ্চাশ হাজার টাকা জমা করেন। এছাড়া গত ২১ ডিসেম্বর ২০২০ ব্র্যাক ব্যাংকের ১৫০৩২০৩৬২৯৪২৪০০ হিসাব নম্বরে এক লক্ষ পনের হাজার টাকা জমা হয়েছে। যার রিসিভ নম্বর ৪০৪৩২৯২৬৪৩৫৫। সুমিত সাহা নাজ প্রোপারটিজ লিঃ, ব্র্যাক ব্যাংকের হিসাব নম্বর-১৫০৩২০৩৬২৯৪২৪০০১ এ প্রতি মাসে টাকা জমা করে থাকেন।

 

উল্লেখ্য যে, গত ২৫ জানুয়ারী সোমবার দুপুরে কাঠালিয়ার মেসার্স ত্বহা ব্রিকস ফিল্ডে এসিল্যান্ড সুমিত সাহা তার অফিসের নাজির মাঈনুলসহ অন্যান্য কর্মচারী, পুলিশ ও দমকল বাহিনীর সদস্য নিয়ে অভিযান চালান। এ সময় নানা অভিযোগ তুলে ইট ভাটার পার্টনার (মালিক) মোঃ শাহিন আকনের কাছে দশ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে ক্ষুব্ধ হয়ে ভাটার মূল মালিক মোঃ এনামুল হকের শ্বশুর হাবিবুর রহমান ও কর্মচারী মফিজুলকে আটক করে কাঠালিয়া এসিল্যান্ড কার্যালয়ে নিয়ে আসেন।

 

পরে পার্টনার (মালিক) শাহিন আকন প্রথমে দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা কাঠালিয়াস্থ এসিল্যান্ড সুমিত সাহার অফিসে গিয়ে তাকে দেন। টাকা কম হওয়ায় তিনি আরও ক্ষিপ্ত হয়। পরে শাহিন এসিল্যান্ডের কাছ থেকে এক ঘণ্টা সময় নিয়ে আবার বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে দেড় লক্ষ টাকা নিয়ে এসে মোট চার লক্ষ টাকা সুমিত সাহাকে পৌঁছে দেন, এ সময় তার নাজির উপস্থিত ছিলেন। টাকা পাওয়ার পরে আটকৃত দুইজনকে ছেড়ে দেয়া হয়। টাকার রশিদ চাওয়া হলে সুমিত সাহার স্বাক্ষরিত মামলার (নম্বর ০৫/২০২১ইং) আদেশে (ক্রমিক নং ৪৮০৮২৩) এর দুই লক্ষ টাকার একটি রশিদ বাটার পার্টার (মালিক) শাহিনকে ধরিয়ে দেয়া হয়। অন্য দুই লক্ষ টাকার কথা জানতে চাইলে তাকে ধমকিয়ে অফিস থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়।