৩ দিন ধরে মেঘনার ডুবোচরে আটকে রয়েছে গমবাহী জাহাজ


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ১:৪০ অপরাহ্ণ, জুন ২৬, ২০২০

দৌলতখান প্রতিনিধি ॥ ভোলার দৌলতখান চৌকিঘাট সংলগ্ন মেঘনার ডুবোচরে এম.ভি এস. এ বাশার জাহাজটি ১৯৮০ মেট্রিক টন গম নিয়ে ৩ দিন ধরে অর্ধনিমজ্জিত অবস্থায় পড়ে আছে।

এ ব্যাপারে এম.ভি এস.এ বাশার জাহাজের মাস্টার মোঃ ইউছুফ আলী জানান, গত ২৩ জুন চট্টগ্রামের বহির্নোঙরে থাকা এমভি ইল মেটাডর শীপ থেকে ১৯৮০ মেট্রিক টন গম বোঝাই করে ২৪ জুন সকাল ৬ টায় ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেয়। দুপুর ২.৩০ এ চর জহিরুদ্দিনের সেলিম বাজার ও দৌলতখানের মাঝামাঝি স্থানে আসলে গুরুত্বপূর্ণ এস আকৃতির একটি টার্নিং পয়েন্টে এম.ভি রোকনুর-১৯ জাহাজটি তার জাহাজের ডান পাশ দিয়ে দ্রুত গতিতে ধেয়ে আসে। এসময় তিনি ওই জাহাজের মাস্টারকে বিএসএফ এর মাধ্যমে বার বার গতি কমানোর জন্য সতর্ক করেন। কিন্তু ওই জাহাজের মাস্টার তার কোন কথা না শুনে সজোরে এসে তার জাহাজের ডান পাশের ২ নং হ্যাচ্রে মাঝামাঝি স্থানে প্রচ- বেগে ধাক্কা দেয়।

এতে করে এম.ভি এস. এ বাশার জাহাজের উপরের অংশে বড় ধরনের ফুটো হয়ে যায় এবং জাহাজের ভেতর পানি ঢুকতে শুরু করে। এ অবস্থায় জানমাল রার জন্য তিনি দ্রুত গতিতে জাহাজটি চালিয়ে ভোলার দৌলতখানের চৌকিঘাট সংলগ্ন মেঘনার ডুবোচরে অবস্থান নেন।

এ ব্যাপারে জানতে এম.ভি রোকনুর-১৯ জাহাজের মাস্টারের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

দৌলতখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বজলার রহমান জানান, এ ব্যাপারে এম.ভি এস. এ বাশার জাহাজের মাস্টার মোঃ ইউছুফ আলী ২৫ জুন একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন (নং ৮৭৮)।