হিজলায় গৃহবধূকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ

প্রকাশিত: ২:৫০ অপরাহ্ণ, জুন ২৪, ২০২০

হিজলা প্রতিনিধি ॥ হিজলা উপজেলা সদর বড়জালিয়া ইউনিয়নের খুন্না গোবিন্দপুর গ্রামের টেকের বাজারে দুই সন্তানের জননী ইসরাত জাহান ইমা কে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

গত ১১ জুন বিকেল আনুমানিক সাড়ে তিনটার দিকে ইসরাত জাহান স্বামী মহসিন রেজা ও ২ বছরের পুত্র সন্তান আবিরকে নিয়ে নিজ বাসভবনের তিন তলায় ছিলেন। ওই সময় স্বামীর পরকীয়া নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে মারধর করে। এর কিছু সময় পর রুমের মধ্যে হঠাৎই ছড়িয়ে পড়ে আগুন। আগুনের কবল থেকে স্বামী সন্তান বেঁচে গেলেও মৃত্যুর হাত থেকে রা পাননি গৃহিণী ইসরাত জাহান। এ নিয়ে চলছে নানা মহলে নানা গুঞ্জন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, খুন্না গোবিন্দপুর গ্রামের দেলোয়ার হোসেন বেপারীর পুত্র মহসিন রেজা হরিনাথপুর ইউনিয়ন এর শফিকুল ইসলামের কন্যা ইসরাত জাহান ইমা কে বিয়ে করে শান্তিপূর্ণভাবে সংসার পরিচালনা করে আসছিলেন। মহাসিন রেজা ও তার বাবা টেকের বাজারের প্রতিষ্ঠিত মুদি ব্যবসায়ী। মহসিন রেজা প্রায় ১ বছর যাবত পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে ডেকে আনেন অশান্তির আগুন।

মহসিনের পরকীয়ার বিষয়টি তার পরিবারের সবাই জানতেন, কারণ এ বিষয় নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া ঝাঁটি লেগেই থাকত।

এদিকে স্থানীয় সচেতন মহলের অনেকেই বলছে রুমের মধ্যে যদি আগুন লাগে তাহলে রুমের সবকিছু পুড়ে যাবে সেখানে শুধু মহসিন এর স্ত্রী শতভাগ পুড়ে শেষ হলেন, সন্তান আবির ও স্বামী মহসিন এর কিছুই হলো না। এমনকি তিনতলার অনেকের ডাক চিৎকার শুনে নীচতলার ব্যবসায়ীরা উপরে উঠতে চাইলে মহসিন তাদেরকে বাসায় ঢুকতে দেননি, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছে এমনটাই।

বাসায় বেশিরভাগই রান্না হতো গ্যাস দিয়ে কিন্তু সেখানে মৃতদেহ থেকে গন্ধ আসে কেরোসিনের। মৃত্যুর খবর শুনে অনেকেই ঘরে গিয়ে গ্যাস এর চুলা দেখেন নি।

মহসিন পরিকল্পিত ভাবেই তার স্ত্রীকে হত্যা করেছেন কারণ রুমের মধ্যে গ্যাস থাকলে গ্যাসের সিলিন্ডার ব্লাস্ট হওয়ার সম্ভাবনা ছিল যার কারণে গ্যাসের সিলিন্ডার চুলা অন্যত্র লুকিয়ে রাখা হয়েছিল।

মৃত্যুর আগে ইমা তার মা ইয়াসমিন বেগম ও তার চাচাতো ভাই আসাদুল্লাহ এর নিকট মৃত্যুর বিবরণ দিয়ে বলেন, আমার স্বামী আমার দুই হাত বেঁধে কেরোসিন দিয়ে আমার শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে আমার ছেলে ও স্বামী রুম থেকে বের হয়ে যায়।

 

মৃত্যুর ঘটনায় ২১ জুন নিহতের বাবা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে মহসিন রেজা, তার বড় ভাই মোস্তফা, বাবা দেলোয়ার হোসেন বেপারী ও পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়া সেই নারী শাহনাজ বেগমকে আসামি করে হিজলা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

হিজলা থানার অফিসার ইনচার্জ অসীম কুমার সিকদার ইসরাত জাহান ইমা দুর্ঘটনায় নিহত না হত্যা করা হয়েছে এমন প্রশ্নের উত্তরে বলেন, ১১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও নিহত ইমা মৃত্যুর আগে ভিডিও রেকর্ডিং করে গেছেন, তাতে কিছুটা হলেও স্বামীকে ইঙ্গিত করেছেন। ওসি আরো বলেন, তদন্তপূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Sharing is caring!