হিজলায় আ’লীগের ২ গ্রুপে সংঘর্ষ : পুলিশ সহ আহত ১০


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৯:৩০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৭, ২০২০

হিজলা প্রতিনিধি ॥ বরিশালের হিজলা উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগের ২ গ্রুপে সংঘর্ষে ৪ জন পুলিশ সহ আহত ১০, সংবাদকর্মীদের সহ প্রায় ২৫ টি মোটরসাইকেল ভাংচুর। ১৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যার দিকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ টিপুর সমর্থকরা খুন্না বাজারে দলীয় কার্যালয়ে জড়ো হন। তখন উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সোলাইমান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাইম একটি মোটরসাইকেলে যাওয়ার পথে পথ আটকিয়ে তাদেরকে মারধর করে টিপু গ্রুপ।

 

এসংবাদ চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে উপজেলা ছাত্রলীগ সহ উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি বেলায়েত হোসেন ঢালী ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম মিলন এর সমর্থকরা খুন্ন বাজারে আওয়ামীলীগের কার্যালয়ের দিকে পূর্ব ও পশ্চিম দিয়ে ২ টি গ্রুপ এগিয়ে এলে পথি মধ্যে পুলিশ তাদেরকে বাধা প্রদান করে। এতে টিপুর সমর্থকরা মাঝপথে অবরুদ্ধ হন।

 

এরপর রাত ১০ টার দিকে সহকারী পুলিশ সুপার মতিয়ুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বকুল চন্দ্র কবিরাজ, ও থানার অফিসার ইনচার্জ অসীম কুমার সিকদার উভয় পক্ষের সাথে কথা বলে দুই গ্রুপকে দু দিকে যাওয়ার সুযোগ করে দিলেও হঠাৎ করে টিপু সমর্থিত অপর একটি গ্রুপ ৯ টি আলফা গাড়িতে সুসজ্জিত আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে খুন্না বাজার ডাকবাংলোর সামনে এসে এলোপাতারি গুলি ও তা-ব চালায়, এসময় তারা প্রায় ২৫ টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে, এ থেকে রক্ষা পায়নি সংবাদকর্মীদের মোটরসাইকেলও।

 

হিজলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মাইটিভি ও দৈনিক মতবাদ এর প্রতিনিধি দেলোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক দৈনিক যায়যায় দিন, দৈনিক দক্ষিণাঞ্চল পত্রিকার প্রতিনিধি সুমনুর রহমান সহ আরো ২ জন সংবাদকর্মীর মোটরসাইকেল ভেঙে চুরমার করে দেয়া হয়। এর পরে ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য পুলিশ ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়। সংবাদকর্মীদের মোটরসাইকেল ভাংচুরের প্রতিবাদে সচেতন মহল তীব্র নিন্দা জানিয়ে, এদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানায়।

হিজলা থানার অফিসার ইনচার্জ অসীম কুমার সিকদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।