হিজলার সড়কে আতঙ্ক বেপরোয়া মাহিন্দ্র ॥ ঘটছে প্রাণ হানির ঘটনা

প্রকাশিত: ১১:২৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩০, ২০২০

সেলিম আহমেদ, হিজলা ॥

বরিশালের হিজলা উপজেলার সড়কগুলোতে বেপরোয়া গতিতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে থ্রি-হুইলার মাহিন্দ্র। তাদের লাগামহীন বেপরোয়া গতির কারণে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। আর তাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন অন্যান্য যানবাহনের চালকসহ পথচারীরা।

জানাগেছে, ‘হিজলার সাথে বরিশালে সড়ক যোগাযোগের প্রধান রাস্তা একটাই। উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ড থেকে মুলাদী এবং বাবুগঞ্জ হয়ে যেতে হয় বরিশালে। ফলে সড়কটিতে ছোট-বড় বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলে নিয়মিত। তবে কিছু দিন পর পরই সড়কটিতে ঘটে মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। এতে ঝরে যায় বহু তাজা প্রাণ। পঙ্গুত্বও বরণ করছেন অনেকে।

আর এই দুর্ঘটনার পেছনে মূল কারণ হিসেবে সড়কে চলাচলরত বেপরোয়া গতির থ্রি-হুইলার মাহেন্দ্রকেই দায়ী করছেন বিশেষ মহল। তারা বলছেন, হিজলার ছোট-বড় যে কোন সড়কে তাকালেই চোখে পড়ছে অসংখ্য থ্রি-হুলার। যা চালাচ্ছে অদক্ষ এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক চালকরা। এ কারণেই সড়কে দুর্ঘটনা নিত্য দিনের বিষয়ে পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ সচেতন মহলের।

যাত্রীরা অভিযোগ করে বলেন, ‘যেসব চালকরা মাহেন্দ্র নিয়ন্ত্রণ করছে তাদের নেই কোন প্রশিক্ষণ বা চালক লাইসেন্স। তার ওপর অদক্ষ চালকরা সড়কে ছুটে চলে বেপরোয়া গতিতে। ধীরগতিতে মাহেন্দ্র চালাতে বলতে গিয়ে অনেক সময় অপমান এবং লাঞ্ছনার শিকার হতে হয় যাত্রীদের।

হিজলার একজন সরকারি কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘সড়ক পথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাহেন্দ্রয় চলাচল করতে হচ্ছে আমাদের। কেননা সড়কে দাপিয়ে বেড়ানো এই ছোট যানের চালকরা যেমন অদক্ষ তেমন অপ্রাপ্ত বয়স্ক। তাদের ধীর গতিতে চালাতে বললে শুনতে হয় ধমকানি। একবার ধীরে চালাতে বললে চালক প্রতি উত্তরে আমাকে গিয়ে গাড়ি চালাতে বলে।’

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, হিজলা উপজেলা জুড়ে রয়েছে অর্ধশতাধিক মাহিন্দ্র। যার অধিকাংশের নেই বৈধ কোন কাগজপত্র। এমনকি চালকদেরও নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স। প্রতি বছর ঈদ আসলেই বেপরোয়া চালকরা মেতে ওঠেন প্রতিযোগিতায়। কার আগে কে যাবে সেটাই থাকে তাদের মূল লক্ষ্য। আর তাদের এই লক্ষ্যই শেষ পর্যন্ত ডেকে আনে দুর্ঘটনায় প্রাণহানীর ঘটনা।

তবে দিনের পর দিন উপজেলা জুড়ে মাহেন্দ্র’র আধিপত্য গড়ে উঠলেও নির্বিকার প্রশাসন। অভিযোগ রয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল নিয়ন্ত্রণ করছে মাহেন্দ্র সিন্ডিকেট। আর তাই সড়কে দাবড়ে বেড়ানো অদক্ষ মাহেন্দ্র এবং চালকদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাচ্ছে না পুলিশ প্রশাসন। এমনকি উপজেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্টও রয়েছে দর্শকের ভূমিকায়।

উপজেলার বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা আছি থ্রি-হুইলার মাহেন্দ্র আতংকে। তারা সড়কে চলাচলের ক্ষেত্রে কোন নিয়ম কানুন মানছে না। স্থানীয় ক্ষমতার দাপটে ক্রমশ আরও বেপরোয়া হচ্ছে তারা। তার উপর মাহেন্দ্রতে সর্বোচ্চ চারজন যাত্রী ওঠার নিয়ম থাকলেও প্রশাসনের চোখের সামনে থেকে আটজন নিয়ে চলাচল করছে। অথচ প্রশাসন প্রতিরোধ করছে না। এর ফলে সড়কে বিশৃঙ্খলা চরম আকার ধারণ করছে।

এ প্রসঙ্গে হিজলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অসীম কুমার বলেন, ‘আমরা মাহিন্দ্র মালিকদের সাথে এ বিষয়ে আলাপ করে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
তাছাড়া হিজলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বকুল চন্দ্র নাথ বলেন, ‘আমি উপজেলায় নতুন এসেছি। এসেই মাহেন্দ্র’র তালিকা হাতে পেয়েছি। খুব শীঘ্রই বেপরোয়া এবং অদক্ষ চালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Sharing is caring!