স্বাস্থ্য বিভাগের উদাসীনতা : কলাপাড়ায় নৌ অ্যাম্বুলেন্স ডুবছে ভাসছে জোয়ারে

প্রকাশিত: ৯:২৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২১, ২০২০

কলাপাড়া প্রতিনিধি \ কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নৌ অ্যাম্বুলেন্সটি পানিতে ডুবে আছে। আবার ভাটিতে পানি কমে যায়। প্রত্যন্ত এলাকার রোগীদের হাসপাতালে আনার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া উপহার নৌ অ্যাম্বুলেন্সটি কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় ক্ষতিগ্রস্তের শঙ্কা দেখা দিয়েছে। দুইদিন ধরে নৌ-অ্যাম্বুলেন্সটি ডুবে যাওয়ার দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। বিষয়টি আলোচনায় উঠে আসে। কলাপাড়া পৌর শহরে হেলিপ্যাড মাঠের পূর্বদিকে আন্ধারমানিক নদীর পাড়ে এটি ডুবে থাকছে।

জরুরী স্বাস্থ্য সেবার কাজের জন্য বরাদ্দ পাওয়া অ্যাম্বুলেন্সটি পানির নিচে ডুবে থাকায় মহসিন উদ্দিন হিমন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে স্ট্যাটাস দেন। তিনি লিখেছেন ‘ভালোবাসার উপহার নদীর গভীরতা মাপে’। এরপরই এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হতে থাকে। বইছে সমালোচনার ঝড়। নৌ অ্যাম্বুলেন্সের এমন চিত্রটি নিয়ে অসংখ্য শেয়ার হয়েছে। আর এটি দেখেছেন তিন শতাধিক মানুষ। গাজী সাইফুল ইসলাম মিথুন লিখেছেন, ‘তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এটা শুধু একটি উপহার না, এটা আমাদের কলাপাড়ার বাসিন্দাদের জন্য একটি সম্পদ।’ ইয়াকুব খান লিখেছেন, ‘জোয়ারে তলিয়ে গেলেও আবার ভাটায় শুকিয়ে যাবে। ডুবিয়ে চুবিয়ে শুকিয়ে যতক্ষণ এদেহে থাকে প্রাণ।’ সজিব রায়হান লিখেছেছন, ‘এটার পরিচালনার দায়িত্বে থাকা কারো বেতন নেয়াতো বন্ধ নেই।’

নৌ অ্যাম্বুলেন্সটি কবে নাগাদ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসেছে, তার সঠিক তারিখ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কেউ জানাতে পারেননি। ২০১৯ সালের শেষ দিকে এটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিকে স্থানীয় এমপি মো. মহিব্বুর রহমান এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, উদ্বোধন হলেও কোনো সময়ই এ নৌ অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে রোগী আনা হয়নি।

কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা চিন্ময় হাওলাদার জানান, আসলে দূরবর্তী এলাকা থেকে রোগী আনার জন্য এটা দেয়া হয়েছে। তবে দূরের এলাকার কোনো রোগী আনার জন্য কেউ কখনও আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। ফলে এটি ব্যবহার হয়নি। তিনি আরও বলেন, কীভাবে যেন এর নিচ থেকে ফুটো হয়ে গেছে। মেরামতও করা হয়েছিলো। নদীর পানির চাপ কমলে এটা তুলে মেরামত করার উদ্যোগ নেয়া হবে।