সুশৃঙ্খল সমাবেশে বিশৃঙ্খল কাণ্ড ঘটালো ছাত্রদল : শীর্ষ নেতারা বিব্রত

প্রকাশিত: ১০:০৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থীদের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার বরিশালে অনুষ্ঠিত হয়েছে বিএনপি’র বিভাগীয় বিক্ষোভ সমাবেশ। শান্তিপূর্ণভাবেই সমাবেশ শুরু করেছিল দলটি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই শান্তির সমাবেশে অশান্তি ডেকে এনেছে বিবাদমান ছাত্রদল। অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে সমাবেশস্থলেই নিজেদের মধ্যে মারামারি এবং চেয়ার ছোড়াছুড়ি’র ঘটনা ঘটেছে। আর এ নিয়ে ঢাকা থেকে আসা বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা হয়েছেন বিব্রত। এক পর্যায় মঞ্চ থেকে নীচে নেমে এসে পরিস্থিতি শান্ত করতে হয়েছে তাদের।
বৃহস্পতিবার বিকালে বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন এর বক্তব্য চলাকালে সমাবেশের মঞ্চের সামনে বরিশাল জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছেন।

 

 

প্রত্যক্ষদর্শী দলীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, ‘বিক্ষোভ সমাবেশ চলাকালে বরিশাল জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক কামরুল আহসান, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি রেজাউল করিম রনি ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির এর সমর্থক ও সদ্য ঘোষিত ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।
একপর্যায়ে দু’গ্রুপের মধ্যে প্রথমে হাতাহাতি এবং পরে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় দুই গ্রুপের নেতাকর্মীরা একে অপরের দিকে চেয়ার নিক্ষেপ ও চেয়ার ভাংচুর করেন। আতঙ্কে নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলে এদিক সেদিক ছোটাছুটি শুরু করেন। সৃষ্টি হয় চরম বিশৃঙ্খলা।
এসময় মঞ্চ থেকে দলের নেতারা ছাত্রদলের দুই গ্রুপকে থামতে বলেন। পাশাপাশি নিজেদের মধ্যে জোর না দেখিয়ে এটা আওয়ামী লীগ এবং পুলিশের সাথে দেখানোর আহ্বান জানান। এতেও পরিস্থিতি শান্ত না হওয়ায় বিএনপির বরিশাল বিভাগের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমানসহ অন্যান্য নেতারা স্টেজ থেকে নেমে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

 

 

জানাগেছে, সম্প্রতি বরিশাল জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের বিভিন্ন ইউনিট কমিটি ঘোষণা করা হয়। ওই কমিটিতে যোগ্য নেতাদের মূল্যায়ন করা হয়নি বলে দাবি ছাত্রদলের একাংশের। এ নিয়ে কমিটি ঘোষণার পর থেকেই বিরোধ চলে আসছে স্থানীয় ছাত্রদলের মধ্যে।
এর জের ধরে বৃহস্পতিবার সমাবেশস্থলে দুই গ্রুপ পাল্টা পাল্টি অবস্থান নেয়। সেখানে প্রথমে স্লোগান দেয়া নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি হয়। পরে চেয়ারে বসা নিয়ে তারা সংঘর্ষ ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি এবং ভাংচুর করে।

 

এসময় ছাত্রদলের পদবঞ্চিত এবং বিদ্রোহী গ্রুপের হামলায় বরিশাল জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক কামরুল আহসান ও মহানগরের সভাপতি রেজাউল করীম রনি শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
তবে এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে জেলা ও মহানগর ছাত্রদল নেতাদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের পাওয়া যায়নি।