সরকারি জমিতে মঠবাড়িয়া পৌর মেয়রের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু

প্রকাশিত: ৯:৩৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

মঠবাড়িয়া সংবাদদাতা  ::

পৌর মেয়র ও উপজেলা আ’লীগ এর সভাপতি রফিউদ্দিন উদ্দিন আহমেদ ফেরদৌস কর্তৃক পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্রে আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে ফুটপাতের সরকারি জমি দখল করে ১৬ টি দোকান ঘরের পাকা স্থাপনা নির্মাণের ঘটনায় অবশেষে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে ওই স্থাপনা অপসারণ করা শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুস সালেক নির্মাণ শ্রমিক নিয়ে সকাল থেকে এ অবৈধ স্থাপনা অপসারণের কাজ শুরু করেন।

পৌর সভার নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, স্থাপনা অপসারণের কাজ দ্রুত গতিতে চলছে। স্বল্প সময়ের মধ্যেই জনস্বার্থে এ স্থাপনা অপসারণের কাজ সম্পন্ন হবে। আলোচিত এই জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কের পাকা স্থাপনা দখল মুক্ত হওয়ার খবর চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে পৌরবাসী স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সড়কের পাশে ফুটপাত দখলের বিষয়টি জনস্বার্থ বিরোধী হওয়ায় জনস্বার্থে স্থাপনা অপসারণের জন্য গত ১৭ জুলাই সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও পিরোজপুর-৩ মঠবাড়িয়া আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ডাঃ মোঃ রুস্তম আলী ফরাজির ভূমি মন্ত্রী, ভূমি সচিব বরাবরে ডিও লেটার দেন।

এ ছাড়াও উপজেলা আ’লীগ এর জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এমাদুল হক খানের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা প্রতিনিধি দল ও মজিবর রহমান, হারুন অর রশিদ নামে দুইজন পৌর সভার বাসিন্দা জেলা প্রশাসক এর সাথে দেখা করে অবৈধ স্থাপনা অপসারণের জন্য জেলা প্রশাসক সহ ডাকযোগে মন্ত্রী, ভূমি সচিব বরাবরে অভিযোগ পত্র পাঠান।

ভূমি নীতিমালা বহির্ভূত অবৈধ পাকা স্থাপনা নির্মাণের বিষয়টি বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হলে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। এরপর সাংসদের ডিও পত্রের প্রেক্ষিতে ভূমি সচিব পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মোঃ সাজ্জাদ হোসেনকে অবৈধ স্থাপনা অপসারণের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে অবহিত করার নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেন।

এরপর পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক গত ১০ সেপ্টেম্বর অবৈধ স্থাপনা সরেজমিন পরিদর্শন করে বিষয়টি জনস্বার্থ বিরোধী হওয়ায় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেন।
এদিকে সাংসদ রুস্তম আলী ফরাজি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় পুনরায় ভূমি সচিব, জেলা প্রশাসক, পিরোজপুর সওজ এর নির্বাহী প্রকৌশলীকে জরুরি ভিত্তিতে জনদুর্ভোগ নিরসনে অবৈধ স্থাপনা অপসারণের তাগিদ দিলে মঙ্গলবার জেলা প্রশাসক পৌর মেয়রকে অবৈধ স্থাপনা অপসারণের নির্দেশ দেন। অবশেষে করোনাকালীন সময় আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে ফুটপাতের বেহাত হওয়া ৫ কোটি টাকা মূল্যের সরকারি জমি দখল মুক্ত হলো।

Sharing is caring!