শেবাচিমে মারলেন নার্সরা, মুচলেকা দিলেন রোগীর স্বজন !

প্রকাশিত: ১০:১৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোগীর স্বজন ও নার্সদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। রোববার দুপুরে হাসপাতালের চতুর্থ তলায় মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডে এই ঘটনা ঘটে।

পরে হাসপাতাল ও পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। এদিকে ঘটনার পরে একে অপরকে দোষারোপ করে পাল্টা পাল্টি অভিযোগ করেছেন।
ভুক্তভোগী রোগীর স্বজন বানারীপাড়া উপজেলার বাসিন্দা জুয়েল মোল্লা জানান, ‘তার মা হালিমা খাতুন স্ট্রোকের রোগী। শনিবার তাকে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। শয্যা খালি না থাকায় তাকে ফ্লোরে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘মায়ের পাশের একটি শয্যায় চিকিৎসাধীন আছেন হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স শহিদুল ইসলামের নিকট আত্মীয়। তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ খবর নিতে রোববার দুপুরে ওয়ার্ডে আসেন শহিদুল ইসলাম।

তিনি প্রায় ১০ বার সেখানে আসা যাওয়া করেন। প্রতিবারই তিনি ফ্লোরে বিছানো তাঁর মায়ের বিছানা জুতা দিয়ে মাড়িয়ে যান। এমনকি এক পর্যায় তিনি তার অসুস্থ মায়ের হাতেও পাড়া দেন বলে অভিযোগ করেন শহিদুলের বিরুদ্ধে।

জুয়েল বলেন, ‘এই ঘটনার প্রতিবাদ করলে নার্স শহিদুল তার সহকর্মীদের নিয়ে এসে আমাকে ও আমার চাচীকে মারধর করে। এ নিয়ে অন্যান্য রোগীর স্বজনরাও ক্ষুব্ধ হন বলে জানান তিনি।

তবে পাল্টা অভিযোগ করে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত স্টাফ নার্স শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমার এক স্বজন গুরুতর অসুস্থ। তার নাকে নল পরাতে হবে। চিকিৎসকের সাথে মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডে গিেেয়ছিলাম। এসময় চিকিৎসাধীন অপর এক রোগীর দুই স্বজন আমার সাথে অশ্লীল আচরণ করেন। এর প্রতিবাদ জানালে তারা আমাকে মারধর করেছে।

এ বিষয়ে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মনিরুজ্জামান শাহীন বলেন, ‘পুলিশের উপস্থিতিতে দুই পক্ষকে ডেকে মীমাংসা করে দেয়া হয়েছে। রোগীর স্বজনরা নিজেদের দোষ স্বীকার করে মুচলেকা দিয়েছে। এখন আর কোন ঝামেলা নেই।

 

Sharing is caring!