শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতুর টোল প্লাজার ক্যাশিয়ারকে জবাই করে হত্যা

প্রকাশিত: ১০:০২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পূর্ব শত্রুতার জের জের ধরে বরিশালের পার্শ্ববর্তী ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার দপদপিয়ায় রুম্মান বিশ্বাস নামের যুবককে জবাই করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক যুবদল নেতা ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে।

নিহত রুম্মান বিশ্বাস দপদপিয়া জিরো পয়েন্ট এলাকার আব্দুস সাত্তার বিশ্বাসের ছেলে এবং এম. খান ট্রেডিং এর হয়ে বরিশাল নগরীর দপদপিয়ার শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু’র টোল প্লাজার ক্যাশিয়ারের দায়িত্বে ছিলেন।

অভিযুক্তরা হলেন- একই এলাকার আইয়ুব আলীর ছেলে স্থানীয় ওয়ার্ড যুবদলের সভাপতি আল মামুন, তার সহযোগী নুরুল হাওলাদারের ছেলে রানা, নূরে আলমের ছেলে জিহাদ, কাজেম আলীর ছেলে আলমগীর, ফজলে আলী’র ছেলে মিরাজসহ অজ্ঞাত কয়েকজন। নিহতের চাচাতো ভাই মুন্না জানান, দীর্ঘ দিন ধরেই দপদপিয়া এলাকার বসার মেম্বার ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আজিজ বিশ্বাসের সাথে রাজনৈতিক অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও জমিজমা- চাঁদাবাজির বিষয় নিয়ে ২ নং ওয়ার্ডের আইয়ুব আলীর ছেলে যুবদল নেতা আল মামুনের বিরোধ চলে আসছে।

আল মামুন ও তার সহযোগীরা চাঁদাবাজি, মাদকসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকায় বসার মেম্বার ও আজিজ বিশ্বাস এর প্রতিবাদ করেন। যে কারণে আল মামুনসহ তাদের বাহিনী বসার মেম্বার ও আজিজ বিশ্বাসসহ তাদের পরিবারকে বিভিন্ন ভয়-ভীতি সহ প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছে। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল।

 

ঘটনার দিন রবিবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে আজিজ বিশ্বাসের চাচাতো ভাই টোলের ক্যাশিয়ার রুম্মান বিশ্বাস বাসা থেকে বের হয়ে টোল প্লাজার উদ্দেশে রওনা হন। পথিমধ্যে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তার পথরোধ করেন যুবদল নেতা আল মামুনসহ তাদের সহযোগীরা। এক পর্যায় আল মামুন, রানা, জিহাদ. আলমগীর, মিরাজসহ তাদের সহযোগীরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে রুম্মান বিশ্বাসকে জবাই করে হত্যার চেষ্টা চালান বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

 

তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে নলছিটি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল হালিম জানান, হত্যার ঘটনা শুনেছি। থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। পাশাপাশি অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় থানায় কোন অভিযোগ বা মামলা দায়ের হয়নি বলে জানিয়েছেন পুলিশের ওই কর্মকর্তা।