লালমোহনে ডিবি পুলিশের উপর মাদক ব্যবসায়ীদের অতর্কিত হামলা

প্রকাশিত: ৬:৩৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৫, ২০২০

এসবি মিলন, লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধি ॥

ভোলার লালমোহনে ইয়াবার চালানসহ ১০ মামলার আসামীকে আটক করতে গিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের অতর্কিত হামলায় কাওছার হোসেন (৪০) নামের এক ডিবি পুলিশ সদস্য মারাত্মক জখম হয়েছেন। পরে জরুরী ভিত্তিতে তাকে ঢাকার নিউরোলোজিক্যাল হসপিটালে স্থানান্তর করা হয়। ভোলা জেলা ডিবি’র ওসি শহিদুল ইসলাম জানান, আহত কাওছারের সাথে এখনও কথা বলা সম্ভব হচ্ছে না। ঘটনার সাথে জড়িত দুই জনকে গ্রেফতার করেছে লালমোহন থানা পুলিশ। এ ঘটনায় ভোলা ডিবি পুলিশের এসআই শংকর কুমার ঘোষ বাদী হয়ে স্থানীয় চরছকিনা গ্রামের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী মিরাজ মাতাব্বরকে প্রধান আসামী করে ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

মামলার এজাহার, লালমোহন থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, গত রবিবার রাতে লালমোহন পৌর এলাকার ১০ নং ওয়ার্ডের চরছকিনা গ্রামের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী মিরাজ মাতাব্বরকে ধরতে ভোলার ডিবি পুলিশের ৬ সদস্য অভিযান চালান। এসময় মিরাজকে তার বাড়ি থেকে আটক করে ডিবি। আটক মিরাজকে ডিবির হাত থেকে ছাড়িয়ে নিতে মিরাজের সহযোগী মাদক ব্যবসায়ীরা ডিবি পুলিশ সদস্যদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

এক পর্যায়ে মিরাজের সহযোগী মাসুম বিল্লাহ ইট দিয়ে পিটিয়ে ডিবি পুলিশের সদস্য কাওছার হোসেনের মুখমণ্ডল থেঁতলে দেন। কাওছার হোসেন রক্তাক্ত জখম হয়ে মাটিতে পড়ে থাকেন দীর্ঘক্ষণ। পরে তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে মাদক ব্যবসায়ী মিরাজ ও তার সহযোগীদের হামলায় আহত হন ডিবি পুলিশের আরো পাঁচ সদস্য। ঘটনার পর থেকে মিরাজ মাতাব্বর পলাতক থাকায় তাকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। তবে হামলায় অংশ নেয়া মিরাজ মাতাব্বরের স্ত্রী মমতাজ ও মিছির আলী নামের দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

লালমোহন থানার ওসি মীর খায়রুল কবীর জানান, ডিবি পুলিশের উপর হামলার প্রধান আসামী চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী মিারাজ মাতাব্বরের বিরুদ্ধে জালটাকা, চুরি, মানুষকে নেশা খাইয়ে অজ্ঞান করা, ইয়াবাসহ নানান ধরনের মাদক বিক্রি ও অপরাধ মূলক কর্মকাণ্ডের অন্তত ১০টি মাদক মামলা রয়েছে। চলতি বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারী ২৭০পিস ইয়াবাসহ আটক হয়েছিলেন মিরাজ। এ ছাড়া সর্বশেষ গত ১৩ আগস্ট তার বিরুদ্ধে জিআর মামলা হয়। এতসব অপরাধ করেও স্থানীয় এক ওয়ার্ড কাউন্সিলরের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় মিরাজ মাতাব্বর লালমোহন উপজেলা জুড়ে ইয়াবার বিস্তার ঘটাচ্ছেন। ২৩ আগস্ট সন্ধ্যায় পাইকারদের কাছে বড় ধরনের ইয়াবার চালান হস্তান্তরের তথ্য পায় ডিবি। পরে ইয়াবা হস্তান্তরের সময়ই মিরাজকে আটক করা হয়েছিল।

Sharing is caring!