মেহেন্দিগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালাল চক্রের দৌরাত্ম্য: অতিষ্ঠ রোগীরা

প্রকাশিত: ৭:১৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০২০

মনির দেওয়ান, মেহেন্দিগঞ্জ প্রতিনিধি  ::

মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দালাল চক্রে সয়লাব। চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা অতিষ্ঠ।

সরেজমিনে দেখাযায়, ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটি চলছে মাত্র দু থেকে তিনজন ডাক্তার দিয়ে। রোগীর উপচে পড়া ভিড়, তার মধ্যে বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের একাধিক ব্রোকারের (দালাল) রোগীদের নিয়ে টানা হেঁচড়া চলছে। ডাক্তারদের চেম্বারের ভিতরে বাইরে চিকিৎসা সেবা নিতে দূর-দূরান্ত থেকে আসা সাধারণ মানুষগুলো পড়েন বিপাকে।

ডায়াগনস্টিকের মালিকরা স্থানীয় ও ক্ষমতাশীলদের ছত্র ছায়ায় থাকায় মুখ খুলতে পারেন না সেবা নিতে আসা অসহায় রোগীরা। নিয়োগপ্রাপ্ত দাললরা স্থানীয় হাসপাতালের এলাকাতেই বসবাস করেন। এজন্য অনেকেই ভয়ে মুখ খুলছেনা।

নাম না বলার শর্তে হাসপাতালের নিকটবর্তী এক ব্যবসায়ী তার আত্মীয়কে চিকিৎসার জন্য বেলা ১২ টায় ডাঃ সজল দত্ত’র রুমে ঢুকতেই চারপাশে ঘিরে ফেলে দালাল চক্র। কে কার আগে টেস্টের কাগজ নিবে সে নিয়ে চলে টানা হেঁচড়া।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য পঃ পঃ কর্মকর্তা রমিজ আহম্মেদের নিকট মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, হাসপাতালে মোট ডাক্তার ১৬ জন, তারমধ্যে দুজন বরিশাল শেবাচিমে করোনা ওয়ার্ডে বাকীরা করোনার কারণে সিফট করে দশদিন করে চারজন ডাক্তার সেবা দিচ্ছেন। দালাল চক্রটিকে কিছুদিন আগেও থানা পুলিশ দিয়ে তাড়ানো হয়েছে। তবে কিছু ডাক্তাররাই ওই চক্রটির সাথে জড়িত। অফিস চলাকালীন রোগীদের কাছ থেকে ওদের মাধ্যমে অর্থ নিয়ে থাকেন- এমন অভিযোগও পেয়েছেন বলে তিনি জানান।

Sharing is caring!