মেহেন্দিগঞ্জে কাবিখা কর্মসূচীর স্ক্যাভেটরে কৃষকের অর্ধলক্ষ টাকার ক্ষেত বিনষ্ট

প্রকাশিত: ৮:৪৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

মনির দেওয়ান, মেহেন্দিগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ মেহেন্দিগঞ্জের চরএককরিয়ায় কাবিখা কর্মসূচীর কাজ স্ক্যাভেটর (বেকু) দিয়ে করতে গিয়ে কৃষকের অর্ধলক্ষ টাকার (ফুলকপি) ক্ষেত নষ্ট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সহায় সম্বলহীন কৃষকের ফসলী জমির উপর দিয়ে কাবিখা কর্মসূচীর আওতায় রাস্তা করেছেন স্থানীয় শহীদ মেম্বার। ভুক্তভোগী কৃষক শহীদুল ইসলামের অভিযোগ, ফসল অপসারণের জন্য ৭ দিনের সময় চেয়ে উপজেলা কৃষি অফিস সহ বিভিন্ন দপ্তর ঘুরেও কোন কাজ হয়নি। ফলে রাস্তা নির্মাণের কারণে রেনুসহ তার প্রায় ৫/৭শত ফুলকপি নষ্ট হয়ে গেছে।

 

জানা গেছে, চরএককরিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড উত্তর দাদপুরচর কাশেম বেপারীর বাড়ী থেকে কোলচর অহিদ মোল্লার দোকান পর্যন্ত কাবিখা কর্মসূচীর আওতায় সড়ক নির্মাণ কাজের পাশেই স্থানীয় কৃষক শহীদুল ইসলাম ফুলকপি চাষ করেন। স্থানীয়রা বলেন, মাত্র সপ্তাহ খানেক সময় পেলেই শহিদুলের এতবড় ক্ষতি হতনা। সরেজমিনে দেখা যায়, স্ক্যাভেটর দিয়ে ফসলী জমির মাটি কেটে রাস্তা নির্মাণের ফলে প্রায় অর্ধলক্ষ টাকার ফুলকপি নষ্ট হয়ে গেছে।

 

এ বিষয়ে চরএককরিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ শহিদ-কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি কৃষক শহিদুলের উপর চড়াও হয়ে বলেন, স্ক্যাভেটর দিয়ে কাজ করার আগে ওকে বলেছি ফসল সরাতে, ও পরিস্কার করে দিয়েছে, কি এমন নষ্ট হয়েছে। এব্যাপারে ইউনিয়ন কৃষি উপ-সহকারীর নিকট সহায়তা চেয়েও পাওয়া যায়নি। তবে কৃষি সহকারী (সংরক্ষণ) কাওসার হোসেন বলেন, আমি ইউপি সদস্য শহীদ এর নিকট মুঠোফোনে কয়েকদিন সময় চেয়েছি যে, কয়েক দিনের মধ্যেই ফুলকপি বড় হবে, তখন বিক্রি করা যাবে। কিন্তু মেম্বার সাহেব সময় না দিয়েই বৃহস্পতিবার রাস্তার কাজ করেন।

 

বিষয়টি নিয়ে উপজেলা প্রকল্প অফিসার মোঃ মুজাহিদুল ইসলাম এর নিকট জানতে চাওয়া হয় যে, শ্রমিকের পরিবর্তে স্ক্যাভেটর দিয়ে রাস্তার কাজ করে ইউপি সদস্য কৃষকের ফসলী জমির ফসল বিনষ্ট করে ক্ষতিগ্রস্ত করছেন। এসময় তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, কোন কৃষক আমার কাছে আসেননি, আসলে সময় দেওয়া হত। তবে ফসল বিনষ্ট করার বিষয়টি দুঃখজনক।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মকিম তালুকদার বলেন, কাবিখার কাজ করছেন ইউপি সদস্য, তবে ফসলের কোন ক্ষতি হয়নি।