মুলাদীতে প্রশাসনের কঠোর অবস্থানে তিন নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ

প্রকাশিত: ৬:১৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০২০

কে.এম মোশাররফ হোসেন, মুলাদী (বরিশাল) প্রতিনিধি  ::

উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের কঠোর অবস্থান এবং অভিযান চালিয়ে ব্যাপক ধরপাকড় করায় বন্ধ হয়ে গেছে মুলাদী উপজেলার তিন নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন। এতে নদী ভাঙন কবলিত সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে আসলেও ড্রেজার মালিকরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। অবৈধ বালু উত্তোলনকারীরা ইতোমধ্যে বিভিন্ন মহলে দৌড়ঝাঁপ শুরু করে দিয়েছেন এবং ‘ম্যানেজ’ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে পুনরায় নদীতে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলনের পাঁয়তারা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

জানাগেছে, মুলাদী উপজেলার জয়ন্তী, আড়িয়ালখাঁ ও নয়াভাঙ্গনী নদীতে প্রায় অর্ধশত ড্রেজার প্রতিদিন কয়েক জাহাজ বালু উত্তোলন করতো। এতে ব্যাপক নদী ভাঙন দেখা দেয়। নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তরা ভাঙন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং অবৈধ ড্রেজার বন্ধের জন্য জেলা প্রশাসক ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে আবেদন জানালে প্রশাসন নড়েচড়ে বসে এবং অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালায়।

গেল এক সপ্তাহে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাসের নির্দেশনায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহানুজ্জামান ও মুলাদী থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফয়েজ উদ্দীন মৃধার নেতৃত্বে প্রশাসন জয়ন্তী, আড়িয়ালখাঁ ও নয়াভাঙ্গনী নদীতে অভিযান চালিয়ে ২জনকে ৬ মাসের কারাদণ্ড, ১৫জনকে বিভিন্ন অঙ্কের জরিমানা এবং ৬টি ড্রেজার আটক করা হয়। এতে ড্রেজার ব্যবসায়ীরা ভীত হয়ে নদী থেকে বালু উত্তোলন বন্ধ করে দেন। সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহানুজ্জামান জানান, কোনো অবস্থাতেই অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করতে দেওয়া হবে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাস জানান, নদী ভাঙন রোধ ও নদী রক্ষার্থে জেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় অপরিকল্পিত বালু উত্তোলন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

Sharing is caring!