মুলাদীতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২১

কে.এম মোশাররফ হোসেন, মুলাদী প্রতিনিধি ॥ মুলাদী পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীর প্রচারণায় হামলা, মাইক ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। এসময় তারা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পোস্টার-ব্যানারে অগ্নিসংযোগ, প্রচার মাইক ও অটোরিকশা ভাংচুর করেন বলে অভিযোগ ওই প্রার্থীর। রবিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) মেয়র প্রার্থী দিদারুল আহসান খানের প্রচারে নৌকা প্রতীকের কর্মীরা এ হামলা চালান। রবিবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে মুলাদী প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের সামনে এমন অভিযোগ তুলে ধরেন মোবাইল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেয়া স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও উপজেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক দিদারুল আহসান খান।

 

সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন, ‘গত শনিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় নৌকা প্রতীকের কর্মীরা ৮নং ওয়ার্ডের মোহাম্মাদ কবিরাজের বাড়ির সামনে তার প্রচারের মাইক ও অটোরিকশা ভাংচুর করে খালে ফেলে দেন এবং ব্যানারে অগ্নিসংযোগ করেন।
তিনি দাবি করে বলেন, ‘ক্ষমতাসীন নৌকা প্রতীকের কর্মী-সমর্থকরা প্রতিনিয়তই তার কর্মীদের ওপর হামলা করছেন কিন্তু নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা কোনো আইনী ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। এছাড়া বহিরাগতরা দেশীয় অস্ত্র ও মোটরসাইকেল নিয়ে নির্বাচনবিধি লঙ্ঘন করে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের মা-বাবাকে হুমকি এবং ভোটে কেন্দ্রে না যেতে হুমকি প্রদানসহ প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে বলেও তিনি সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন।

 

এসময় তিনি আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি পৌর নির্বাচনে সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টির জন্য নির্বাচন কমিশন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি জোর দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে তার সাথে স্থানীয় শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।
আওয়ামী লীগের প্রার্থী মেয়র শফিক উজ্জামান রুবেল স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণায় হামলা-ভাংচুরের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমার কোনো কর্মী-সমর্থক কারও ওপর হামলা কিংবা কাউকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেননি। প্রার্থী দিদারুল আহসান খান আমার কর্মীদের মোটরসাইকেলের চাবি নিয়ে আমার কর্মীদের বিরুদ্ধে উল্টো অভিযোগ করেছেন।