মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজারই এখন টিকা- বিএমপি কমিশনার


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ১২:০০ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৭, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ (বিএমপি) কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান- পিপিএম (বার) বলেছেন, ‘এই মুহূর্তে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো করোনা যুদ্ধ। টিকা আসার আগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ যুদ্ধে টিকে থাকতে হবে। টিকা আসার আগ পর্যন্ত মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজারই এখন আমাদের টিকা।

গতকাল মঙ্গলবার নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধে সচেতনতামূলক কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি’র বক্তৃতায় বিএমপি কমিশনার এ কথা বলেছেন।

বিএমপি কর্তৃক আয়োজিত এ কর্মসূচিতে তিনি আরও বলেছেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরগুলোর মানুষ যদি আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি তাহলে, বাকিদের সুরক্ষা সহজ। পরিবহন সেক্টরের প্রত্যেকে এককজন যোদ্ধা, সৈনিক হিসেবে নিজেকে সুস্থ রেখে যাত্রীদের দূরত্ব-মাস্ক নিশ্চিত করার মাধ্যমে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারেন।
তিনি বলেন, ‘মনে রাখতে হবে আপনি আক্রান্ত হলে পরিবারসহ আরও পাঁচজন আক্রান্ত হবে, পর্যায়ক্রমে সবাই আক্রান্ত হবে। তাই এ যুদ্ধ শুধু একার বিষয় নয়, সবার অবশ্যই পালন করতে হবে নয়তো অর্থনীতি মুখ থুবড়ে পড়বে, দেশ পিছিয়ে যাবে।

বিএমপি কমিশনার বলেন, ‘পরিবহন সেক্টর দেশের বৃহৎ অংশ সুরক্ষিত রাখতে পারে। একটি মাস্ক প্রায় ৮০ ভাগ জনগণকে সুরক্ষা দিবে। সুতরাং মাস্ক সঠিক ভাবে নিজে পরতে হবে যাত্রীদেরকে মাস্ক পরিয়ে গাড়িতে ওঠাতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে পুলিশ-পরিবহনে কর্তৃপক্ষের মাঝে একটা নিবিড় জনকল্যাণকর সম্পর্ক থাকবে। কল্যাণের নামে গ্রহণযোগ্য কোন চাঁদা বা অনিয়মের অভিযোগ পেলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। আপনাদের আরও নির্ভেজাল পুলিশি সেবা দিতে আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ চলমান রেখেছি। যাবতীয় অনিয়ম বন্ধে আমাদের ইন্টেলিজেন্স কাজ করছে, সত্যিকারের আস্থার পুলিশি সেবার বাহিরে কোন আধিপত্য চলবে না।

শাহাবুদ্দিন খান বলেন, কোন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে কোন প্রকার অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে আমাকে জানাবেন। যে কোন ঘটনা ঘটার সাথে সাথে আমাদের গোপনে বা প্রকাশ্যে জানাবেন। সবাই এক হয়ে কাজ করার মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি মেনে একটি নিরাপদ পরিবহন সেবা উপহার দেয়া সম্ভব মর্মে আশাবাদ ব্যক্ত করেন বিএমপি কমিশনার।
সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. আনিস এর সঞ্চালনায় সচেতনতামূলক এই কর্মসূচিতে আরও বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার প্রলয় চিসিম। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মো. মোকতার হোসেন- পিপিএম (সেবা), উপ-পুলিশ কমিশনার (নগর বিশেষ শাখা) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন মল্লিক, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. খাইরুল আলম, উপ-পুলিশ কমিশনার (সাপ্লাই এন্ড লজিস্টিকস) খান মুহাম্মদ আবু নাসের, উপ-পুলিশ কমিশনার ( গোয়েন্দা) মো. মনজুর রহমান- পিপিএম (বার), অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অপারেশন এন্ড প্রসিকিউশন) মো. আকরামুল হাসান প্রমুখ।

আলোচনা পর্ব শেষে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিএমপি কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান ও অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার প্রলয় চিসিম নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ডে বিভিন্ন পরিবহনে করোনা প্রতিরোধে সচেতনতামূলক বিভিন্ন স্লোগানযুক্ত স্টিকার লাগিয়ে দেন।