মঠবাড়িয়া পৌর মেয়রকে করোনা প্রতিরোধে ৯ প্রস্তাবনা

প্রকাশিত: ৩:৩৪ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২০

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় করোনা প্রতিরোধে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর বিচক্ষনতা ও দুরদর্শীতার সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মঠবাড়িয়া পৌরবাসীর পক্ষ থেকে পৌর মেয়রকে ৯ টি প্রস্তাবনা দিয়েছেন যুদ্ধকালীন সুন্দরবন অন্ঞ্চলের ৯ম সাব – সেক্টর কমান্ড এর ইয়ং অফিসার মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মজিবুল হক খান মজনু।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহমেদ ফেরদৌসের বরাবর লিখিত ১০.০৪.২০২০ খ্রি. তারিখের আবেদনটির অনুলিপি সদয় জ্ঞাতার্থে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী,এলজিইডি মন্ত্রী,বিভাগীয় কমিশনার- বরিশাল,জেলা প্রশাসক- পিরোজপুর,উপজেলা নির্বাহী অফিসার-মঠবাড়িয়া ও মঠবাড়িয়া প্রেস ক্লাব সভাপতির নিকট প্রেরণ করেন।
আবেদনে উল্লেখিত প্রস্তাবনাগুলোর মধ্যে রয়েছে – (ক)চেইন অব কমান্ডের ভিত্তিতে পরিচ্ছন্ন কর্মীদের দায়িত্ব/কর্তব্য সুষ্ঠুভাবে তদারকি জোরদার করণ।
(খ)বাজার এলাকা সহ প্রতিটি রোডে ময়লা আবর্জনা সংরক্ষনের জন্য “আমাকে ব্যবহার করুণ ” খোদিত পাত্র /ড্রাম দৃশ্যমান স্হানে স্হাপন করা এবং প্রতিদিন পরিচ্ছন্ন কাজে ব্যবহার্য গাড়ি/ভ্যানের মাধ্যমে উহা অপসারণ করা।
(গ)সরকারি হাতেম আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পিছন হইতে কেন্দ্রীয় মসজিদ,নিউ মার্কেট,৮০ ভিটির পিছনের খালের সৃষ্ট ময়লা আবর্জনা নিষ্কাশন করণ সহ পানি চলাচলের ব্যবস্হা করা।
(ঘ)মঠবাড়িয়া কলেজ সংলগ্ন আশ্রমের সম্মুখের ডোবা, টি এ্যান্ড টি অফিসের সামনের ডোবা সহ অন্যান্য ডোবা /নর্দমা/নর্দমার কচুরিপানা/ময়লা ইত্যাদি পরিষ্কার করা।
(ঙ) কে,এম,লতীফ ইনস্টিটিউশনের খেলার মাঠের চার কোনা,নির্মানাধীন নতুন স্টেইজ এর পিছনের ময়লা আবর্জনা,দধিরাম ছাত্রাবাসের ডোবার আবর্জনা এবং সমবায় মার্কেটের পূর্ব পার্শ্বের পুকুরের ময়লা পরিষ্কার করণ।
(চ) উপর্যুক্ত স্হান সমূহ ছাড়া অন্যান্য দৃশ্যমান স্হানের ময়লা -আবর্জনা পরিষ্কার করণ।
(ছ) স্বাস্হ্য সম্মত পৌর শহরের সুবিধা সর্ব সাধারণের জন্য নিশ্চয়তা বিধানের লক্ষ্যে নিয়মিত স্প্রে মেশিনের মাধ্যমে ঔষধ ছিটানো যার সুষ্ঠু তদারকি প্রতি ওয়ার্ডের কমিশনারগনের মাধ্যমে নিশ্চিত করণ সহ মোট ৯ টি প্রস্তাবনা উল্লেখ করেন তিনি।
আবেদনকারী মুক্তিযোদ্ধা মজিবুল হক মজনু পৌরসভা কার্যালয়ে আবেদনটি পৌছিয়ে রিসিপ কপি সংগ্রহ করেন।মেয়র সাহেব মঠবাড়িয়ার বাহিরে অবস্হান করায় তাঁর পক্ষে অফিস সহকারি আবেদনটি গ্রহন করেন।
উক্ত মুক্তিযোদ্ধা জানান,সীমানা সংক্রান্ত কৃত্রিম সংকট তৈরি করে হাইকোর্টের মামলা থাকার দোহাই দিয়ে মঠবাড়িয়া পৌর নির্বাচন কয়েক যুগ ধরে স্হগিত রাখায় ১ম শ্রেনীর এ পৌরসভাটি এখন একটি অবহেলিত ও বসবাস অনুপযোগী পৌর শহরে পরিনত হয়েছে।একজন মেয়র ও দলের উপজেলা সভাপতি হিসেবে দায়িত্বে থাকার সুফল দেখতে চায় মঠবাড়িবাসী।
এ ব্যাপারে পৌর মেয়রের সাথে মুঠো ফোনে কথা বলার চেষ্টা করা হলে  রিসিভ না করায় সম্ভব হয় নি।

Sharing is caring!