মঠবাড়িয়ায় হত্যাকাণ্ডকে আত্মহত্যা বলে অপপ্রচার

প্রকাশিত: ৩:১৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০

মো. শাহজাহান, মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি  ::

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় শাকিলা আক্তার নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে নির্মমভাবে হত্যা করে আত্মহত্যার অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ উঠেছে। নিহত শাকিলা পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া উপজেলার হরিনপালা গ্রামের মোঃ কাইউম হাওলাদার এর কন্যা। ২৯ জুন মঠবাড়িয়া থানার অন্তর্গত মিরুখালী রোড ভাই বোন ভিলা ৭ নং ওয়ার্ড মঠবাড়িয়া পৌরসভার আঃ মান্নান ঘরামীর বসত ঘরে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

অভিযোগে জানা গেছে, গত ২৬.০১.২০১৮ খ্রি. তারিখ শাকিলার সঙ্গে মঠবাড়িয়া পৌর শহরের হাসান ঘরামীর বিয়ে হয়। বিবাহের ১ বছর যেতে না যেতেই ওই নববধূর ওপর শুরু হয় নির্যাতন। এরই ধারাবাহিকতায় একপর্যায়ে আসতে থাকে জীবনে মেরে ফেলার হুমকি। আর এ হুমকির মধ্যেই শাকিলাকে আটক করে রাখা হয়েছে এমন খবরে শাকিলার বাবা থানা পুলিশের সহযোগিতায় হাসান ঘরামীর পৌর শহরের ওই বাসা থেকে উদ্ধার করে আবার স্থানীয় গণ্যমান্যদের মধ্যস্ততায় আপোষ রফা করেন। কিন্তু কন্যা সন্তান জন্মের পর নির্যাতন আরো বাড়িয়ে দিয়ে ১০ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবি করেন স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন। টাকা না দিলে খুন করারও হুমকি দেন তারা।

একপর্যায়ে ঘটনার তারিখ ও সময় যৌতুকের দাবিতে ভিকটিম শাকিলাকে মারধর ও শ্বাসরোধে হত্যা করে আসামীরা নিহতের লাশ মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ফেলে রেখে পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় নিহতের পিতা ৬ জনকে আসামী করে মঠবাড়িয়া থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করার জন্য পুলিশ সুপার পিরোজপুরের নিকট ৫ জুলাই লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ সুপার উক্ত অভিযোগটি মঠবাড়িয়া থানায় অগ্রগামী করেন।

ইতোপূর্বেও একাধিক অভিযোগ রয়েছে আসামীদের বিরুদ্ধে। ১৭.১০.২০১৯ খ্রি. তারিখে একটি কক্ষে আটকে রেখে বেধড়ক মারধর করে।থানা পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।

২৪.১২.২০১৯ খ্রি. তারিখ মারধরের ঘটনায় কোথাও লিখিত অভিযোগ না দিলেও মেয়েকে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে চিকিৎসা করান বাবা। ব্যবস্থা পত্রে ফিজিক্যাল অ্যাসল্ট উল্লেখ আছে।

নিহতের বাবা কাইউম হাওলাদার ১১.০৩.২০১৮ খ্রি. তারিখ ভবিষ্যৎ জটিলতা এড়াতে নোটারী পাবলিক এর কার্যালয় পিরোজপুরে একটি এফডেভিড সম্পাদন করেন। এফিডেভিডে বিবাহের দেনমোহরনা ধার্যকৃত ১০ লক্ষ টাকা সম্যক বাকি রাখা ,জামাতা হাসান ঘরামী ১০ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবি,বিভিন্ন সময় হুমকি,কাজীর বিরুদ্ধে সইমোহর নিয়ে স্বজনপ্রীতি ও টালবাহানার অভিযোগ,মেয়ের মারাত্মক ক্ষতির সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

নিহতের বাবা কাইউম হাং অভিযোগ করে বলেন,গত ২৯ জুন আমার মেয়েকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে আত্মহত্যার অপপ্রচার চালানো হয়।আমরা ওইদিন বিকালে খবর পেয়ে স্থানীয় থানা পুলিশ নিয়ে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে লাশের গায়ে মারধরের চিহ্ন দেখতে পাই। আমরা হাসপাতালে যাওয়ার আগেই আসামীরা লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। মামলার ভয়ে তারা হত্যাকা-কে আত্মহত্যা বলে অপপ্রচার করতে থাকে।

এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু জাফর মো মাসুদুজ্জামান জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Sharing is caring!