মঠবাড়িয়ায় নারী চেয়ারম্যানকে হত্যা চেষ্টা, গ্রেপ্তার নেই আসামী


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৬:২৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) সংবাদদাতা ॥ মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক নারী ভাইস চেয়ারম্যান শোভা রানী মজুমদার (৫২) কে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা মামলার আসামীরা গ্রেপ্তার হননি দু’মাসেও। ফলে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে হামলাকারীদের পুনরায় হামলার শিকার হবার আশঙ্কায় তিনি গ্রামের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। গত ২ জুলাই রাত ৯ টার দিকে বসত ঘর থেকে রান্না ঘরে যাওয়ার উদ্যত হয়ে দরজা খোলার সাথে সাথে শোভা রানী মজুমদারের গলার চেইন ছিনিয়ে নেয়। পরে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মৃত ভেবে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরা। এ ঘটনায় তিনি হাসপাতালে থেকে ৫ জুলাই ইসমাইল হাওলাদার (২২) ও তার পিতা রত্তন হাওলাদার (৫০) সহ অজ্ঞাত দুই জনের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা করেন।

শোভা রানী মজুমদার মঠবাড়িয়া আনসার ভিডিপি এর পৌর প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তার ওপর নৃশংস হামলার প্রতিবাদে ও আসামীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মঠবাড়িয়া, ভান্ডারিয়া, কাউখালী ও রাজধানী ঢাকাতেও মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রত্তন হাওলাদার স-পরিবারে এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তাদের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া থানায় ৫টি মাদক মামলা রয়েছে। সম্প্রতি মঠবাড়িয়া থানার এস আই শাহানাজ পারভীন ১৩০০ পিস ইয়াবাসহ পুরো পরিবারকে গ্রেপ্তার করে। এর আগে পিরোজপুর ডিবি পুলিশের এস আই দোলোয়ার হোসেন জসিম ৪ দফা তাদেরকে ইয়াবা, গাঁজা. চোরাই মাল ও নগদ টাকাসহ গ্রেপ্তার করেন।

এস আই দোলোয়ার জানান, বিভিন্ন সময় চোরাই মাল ও ১ কেজি গাঁজাসহ রত্তনের ছেলে কালামকে প্রথম গ্রেপ্তার করা হয়। দ্বিতীয় দফায় তাদের ১০ কেজি গাঁজা, ২শ পিস ইয়াবা, তৃতীয় দফায় ৫ পিস ইয়াবা ও নগদ ৩২ হাজার টাকা। শেষবার ৫০ পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয়।

এদিকে এলাকার চিহ্নিত মাদক পরিবারটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমিতে অবৈধভাবে বসবাস করে আসছে। মাদক পরিবার হিসেবে কয়েক বছর আগে এলাকাবাসি তাদেরকে এলাকাচ্যুত করেন। অজ্ঞাত কারণ ও অদৃশ্য শক্তির ফলে আবারও তারা ওই জমিতে পাকা স্থাপনা নির্মাণ করে একধরনের ঢোল-ডাঙ্কা পিটিয়ে মদক ব্যবসা করে আসছে।

শোভা রানী মজুমদার জানান, পুলিশ বার-বার মাদক পরিবারের সদস্যদের গ্রেপ্তার করে। আমার বাসা ওই মাদক পরিবারটির বাসা সংলগ্ন হওয়ায় আমি পুলিশকে সহযোগিতা করি এই সন্দেহে তারা আমাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। আমাকে মৃত ভেবে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। তিনি ক্ষোভের বলেন, আজ দুমাস হলেও পুলিশ কোন আসামী গ্রেপ্তার করতে পারেনি। এদের উপযুক্ত শাস্তি না হলে পরে আমাকে খুন করে ফেলবে।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি মাসুদুজ্জামান জানান, আসামীদের গ্রেপ্তার পুলিশি অভিযান অব্যহত রয়েছে।