মঠবাড়িয়ায় জখমী সনদপত্র প্রদানে অনিয়মের অভিযোগ

প্রকাশিত: ৪:৪৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০

মো. শাহজাহান, মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি ::

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করার মামলায় জখমী সনদপত্র নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, প্রতিপক্ষ দুর্বৃত্তরা পূর্ব বিরোধের জের ধরে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে ঝগড়া বিবাদের সৃষ্টি করে লিপি বেগম (৪০),স্বামী-বেল্লাল,সাং-টিকিকাটা,মঠবাড়িয়া,পিরোজপুরকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় মঠবাড়িয়া থানার মামলা নং-২৬,তাং-১৩/০৫/২০২০ খ্রি. এর প্রেক্ষিতে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইমার্জেন্সি রেজিঃ নং-৪১২৪/৫ অনুযায়ী সৃজিত জখমী সনদপত্রটি পুনরায় বিবেচনার জন্য মঠবাড়িয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করা হয়।

পুন:বিবেচনার আদেশের প্রেক্ষিতে ০৬/০৯/২০২০ খ্রি.তারিখ পিরোজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে মেডিকেল বোর্ড বসানো হয়। উক্ত বোর্ড পূর্বের একই রিপোর্ট প্রদান করে। বাস্তবে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হলেও রিপোর্টে সিম্পল জেসব্লান্ট উইপন ইউজড লেখা এসেছে বলে দাবি ভুক্তভোগীর।

রিপোর্ট পেয়ে জখমী ওই নারী জানান, মামলায় উল্লেখিত আসামিরা হত্যার উদ্দেশ্যে আমার মাথায় কোপ দিলে লক্ষ ভ্রষ্ট হয়ে কপালে লাগে। এতে আমার কপালে ৫টি সেলাই দেওয়া হয় ও প্রায় ১ সপ্তাহ মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি থাকি। ভর্তি রেজিষ্ট্রেশন খাতায় কাট ইনজুরি লেখা থাকলে রিপোর্ট কেন সিম্পল আসে। মারাত্মক কোপের জখমে রেজিস্ট্রারে কাট ইনজুরি না লেখা অনিয়ম।

তিনি আরও জানান,চিকিৎসকের ওই রিপোর্টের ভিত্তিতে চার্জশিট দিবে পুলিশ। এমসি রিপোর্ট সঠিক না পেলে ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হব।

Sharing is caring!