মঠবাড়িয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

প্রকাশিত: ৪:১৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৫, ২০২০

মো. শাহজাহান, মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি ॥

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ইভটিজিং এর ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারামারির ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে।

সরেজমিনে জানা গেছে, উপজেলার সাপলেজা হাই স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত আন্তঃগ্রাম ফুটবল টুর্নামেন্ট চলাকালীন শতশত দর্শনার্থীর পাশাপাশি মাঠ সংলগ্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাদে স্কুল অ্যান্ড কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীরাসহ বেশ কিছু নারী দর্শনার্থী খেলা উপভোগ করছিল। এ সময় ওই ছাদে থাকা স্থানীয় খোকন নামে এক মাছ ব্যবসায়ীর মেয়ে ইভটিজিং এর শিকার হয়ে টুর্নামেন্ট আয়োজকদের জানালে মুহূর্তের মধ্যেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় কিছু যুবক অতি উৎসাহী হয়ে ইভটিজারদের ধাওয়া করলে তারা মাঠ থেকে পালিয়ে যায়।

ওইদিন ৩০ জুলাই সন্ধ্যার পর উক্ত মাছ ব্যবসায়ী ইভটিজারদের বিরুদ্ধে স্থানীয়ভাবে বিচার দেওয়ার জন্য টাওয়ার বিল্ডিংয়ের সামনে মোটরসাইকেল স্টেশনে গেলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ব্যবসায়ীর পক্ষে বিপক্ষে পুনরায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু গয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে যুবলীগ নেতা কালাম মোল্লা আহত হন।

এ ঘটনায় নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে মঠবাড়িয়া থানায় গত ২ আগস্ট ৯ নং সাপলেজা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মিরাজ মিয়াকে প্রধান আসামি করে ৭ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান মিরাজ মিয়া জানান, স্থানীয় নির্বাচনী প্রতিপক্ষ একটি মহল আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন ও হয়রানি করার জন্যই এ মামলা দায়ের করেছে। মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাসুদুজ্জামান জানান,অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা রুজু করা হয়েছে। সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষী ব্যক্তিদের বিরদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Sharing is caring!