ভোলায় হুজুর আলাউদ্দিন হত্যার প্রতিবাদে জন-মুখরিত মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৩:৫৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

আজ সকালে আলাউদ্দিন হত্যার প্রতিবাদে জন মুখরিত হয়ে দলমত নির্বিশেষে তার নিজবাড়ী ও ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান ফকিরহাট বাজার এলাকায় মানববন্ধন করেন বাজার ব্যাবসী সমিতি ও মুজিব সেনা পরিষদ। মানববন্ধনটি আয়োজনে ঐ এলাকার মুজিব সেনা পরিষদ নামক একটি সমাজ সেবামূলক সংগঠন একনিষ্ঠা ভূমিকা পালন করেন। এ সমাজ সেবামূলক পরিষদটির সভাপতি মানবতাবাদী যুগ নেতা মনিরুজ্জামান মনিরসহ পুরা একাবাসী এবং তার পরিবার এ হত্যার তিব্র নিন্দ ও বিচারে দাবী জানান।

উল্ল্যখ ১৫ লক্ষ টাকার জন্য জবাই করে হত্যা করা হলো ডাচ বাংলা এজেন্ট হুজুর আলাউদ্দিনকে। অপরাধী দিবাকর চন্দ্র শর্মা হুজুর আলাউদ্দিনের বিশ্বস্ত ব্যাক্তি হওয়া তাকে ব্যাংকের ক্যাশিয়ার হিসাবে নিয়োগ দেন,কিন্ত ঘাতক দিবাকর দিনের হিসাব দিনে বাংলাবাজার প্রধান শাখায় দেওয়ার কথা থাকলেও, ছয় দিনের হিসাবের টাকা প্রেরন করেনি প্রধান শাখায়। পাশাপাশি চক্রের সাথে তার নিবর সম্পর্ক গড়ে উঠার কথা উঠে আসছে।অন্যদিকে গ্রেফতার হওয়া আসামি আবুল কালামের সাথে ছিলো আলাউদ্দিনের সার ও ঔষদের ব্যাবসার পাওনা দেনার সম্পর্ক নিয়ে বাগবিতণ্ডা । আসামি দিবাকরের দেনা টাকা না দেওয়ার প্রলোভনে পড়ে আসামি আবুল কালাম হত্যার ঘঠনা পরিচালনা করেন ।

এ দিকে ৬ দিনের জমানো টাকা পাওয়ার লোভে মনপুরা উঠুয়া বাহিনীর মূল হোতা জয়নাল নিজের ভাড়া করা ৩ খুনিকে তজুমদ্দিন থেকে নিয়ে এসে নিজ বাড়ীতে জামাই আদরে থাকা খাওয়ার ব্যাবস্থা করেন। ঘঠনার দিন রাতে ভাড়াটিয়া খুনিসহ মোট ৫ জন ধারালো ছুড়ি দিয়ে জবাই কর আলাউদ্দিনকে ওই দিনের ১৫ লক্ষ টাকা নিয়ে যায় বলে ধারনা করছেন নিহতের ভাইরা। ওসি মোঃ ফোরকান আলী জানান, পরক্ষ ভাবে পুরো বিষয়টি পর্দার অন্তরালে পরিচালনা করেন সৈই বিশ্বাস ঘাতক দিবাকর চন্দ্র শর্মা।

ভোলার মনপুরা উপজেলায় ব্যাংকে এজেন্টকে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে। ভাড়াটিয়া ৩ খুনিসহ ৫ জনকে পালিয়ে যাওয়ার সময় আটক করেছেন পুলিশ।স্থানিয়রা জানান, ভোলার মনপুরা থানার ফকির হাট বাজার এলাকায় ডাচ বাংলা ব্যাংকের এজেন্ট মোঃ আলাউদ্দিন হুজুরকে বাড়ি ফেরার পথে গলায় চুরির চালিয়ে হত্যা করে দুবৃত্তরা। ৬ সেপ্টেম্বর রাত ১২টাই এ ঘটনা ঘটে। রাতেই তাকে মনপুরা হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন ।

পুলিশ পুরো মনপুরায় চিরুনি অভিযান চালিয়ে এজহার নামিয় আসামি ডাচ বাংলা ব্যাংক এর কেরানী দিবাকর শরমাকে আটক করেন। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বাকি ৩ ভারাটিয়া খুনিকে পালিয়ে যাওয়ার সময় লঞ্চ থেকে গ্রেফতার করেন। এবং রাতে বুকে কোপ দেয়া মুল আসামিদের আন্যত আবুল কারামকে গ্রেফতার করেছে মনপুরা থানা পুলিশ। গ্রেফতার কৃত আবুল কালামের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে জবায়ে ব্যবহার করা ছুড়ি।মনপুরা থানার ওসি ফোরকান আলী জানান,আমরা গত রাতে মূল আসামীদের মধ্যে অন্যতম আবুল কালামকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি তাকে নিয়ে রাতভর অভিযানে জবায়ে ব্যাবহৃত ছুড়ি ক্রাইম সিনের পাসের কুয়া থেকে উদ্ধার করতে পেরেছি। এবং হত্যায় ব্যবহৃত আরো একটি ছুড়ি তজুমুদ্দিন থেকে আনা ভারাটে খুনি মাকসুদের কাছ থেকে উদ্ধার করতে পেরেছি। খুনের অন্যতম পরিকল্পনা কারি জয়নালকে আটকের জন্য বিরামহীন অভিযান চলছে। এডিশনাল এসপি মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে খুনিদের আটকের অভিযান অব্যহত রয়েছে।

 

Sharing is caring!