ভোলায় ডিসি অফিসে গিয়ে পেঁয়াজ কিনতে বলছেন ব্যবসায়ীরা!

প্রকাশিত: ৩:৩৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

ভোলায় তিনদিন ধরে পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ফলে শহরের কাঁচাবাজারসহ দোকানগুলো পেঁয়াজশূন্য। যে কারণে পেঁয়াজ কিনতে আসা ক্রেতারা ফিরছেন খালি হাতে।এদিকে সাধারণ ক্রেতাদের অভিযোগ, বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি না করতে পেরে আড়ৎদার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন।অন্যদিকে আড়ৎদাররা বলছেন, মোকামে পেঁয়াজের দাম অনেক বেশি। কিন্তু আমরা বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করলে প্রশাসনের বাধা আছে। তাই মোকাম থেকে পেঁয়াজ ক্রয় করা বন্ধ করে দিয়েছি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ভোলা শহরের কাঁচাবাজার ঘুরে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, গত রোববার (৬ অক্টোবর) শহরের কাঁচাবাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে সাড়ে ৩ হাজার কেজি পেঁয়াজ জব্দ করে হয়। অতিরিক্ত দামে পেঁয়াজ বিক্রি করায় ওই সময় কয়েকজন ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শহরের কাঁচাবাজারের আড়ৎদার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ করে দিয়েছেন। ফলে তিনদিন ধরে ভোলা শহরের কাঁচাবাজারসহ বিভিন্ন হাট-বাজার ও দোকানগুলো পেঁয়াজশূন্য। এতে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে সাধারণ ক্রেতারা ফিরছেন খালি হাতে।

সাধারণ ক্রেতা মো. মামুন ও আরিফ হোসেন জানান, ভোলা শহরের বিভিন্ন দোকানে তিনদিন ধরে কোনো পেঁয়াজ নেই। এমনকি কাঁচাবাজারেও পেঁয়াজের দেখা নেই। দোকানে পেঁয়াজ কিনতে গেলে তারা আমাদের বলে ডিসি অফিসে গিয়ে পেঁয়াজ কিনতেন। আমরা এর কারণ জিজ্ঞাস করলে তারা আমাদের বলে বেশি দামে পেঁয়াজ কিনে কি কম দামে বিক্রি করবো নাকি?শহরের কাঁচাবাজারের খুচরা বিক্রেতা মো. নুরু উদ্দিন জানান, আড়তে কোনো পেঁয়াজ নেই। আমরা পেঁয়াজ কিনতে পারি না। এজন্য ক্রেতাদের কাছে পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারি না।

Sharing is caring!