ভাণ্ডারিয়ায় ধানের শীষের কাণ্ডারি হতে চান আব্দুল মন্নান বাবু

প্রকাশিত: ৮:৫৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২১

মো. মামুন হোসেন, ভাণ্ডারিয়া প্রতিনিধি ॥ পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়া উপজেলার ভিটাবাড়ীয়া ইউনিয়নে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছা সেবক দলের নেতা আব্দুল মন্নান বাবু (খান) ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ধানের শীর্ষের প্রতিকে দেখতে চায় দলীয় নেতাকর্মী ও স্থানীয় এলাকাবাসী। আব্দুল মন্নান বাবু ভাণ্ডারিয়া উপজেলার উত্তর শিয়ালকাঠী গ্রামের মরহুম হাজী মতিউর রহমান খানের ছোট ছেলে।

 

জানা গেছে, উক্ত বাবুর হাতে বিএনপির মনোনয়ন দিলে তার যথাযথ মর্যাদা রক্ষা হবে। তিনি আসন্ন ইউপি র্নিবাচনে ভিটাবাড়ীয়া ইউনিয়নে ধানের শীষের প্রতীকে চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোয়ন সংগ্রহ করবেন এবং স্থানীয় ইউনিয়ন দলীয় রাজনীতি সুসংগঠিত করবে বলে গুঞ্জন এখন দলীয় নেতাকর্মীদের মুখে মুখে। তবে স্থানীয় সাধারণ জণগণ মনে করেন এই মহুর্তে ভিটাবাড়ীয়ায় বিএনপির একজন প্রার্থী দেয়া প্রয়োজন।

 

এছাড়াও এ এলাকাটির প্রার্থী দেয়া নিয়ে দলীয় হাইকমান্ডে আলোচনা চলছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে সংবাদ সংগ্রহকালে জানা যায়, আগামী ইউপি নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির প্রার্থী মনোনীত হলে এ ইউনিয়নটি বিএনপির শক্তিশালী ঘাটি হবে এবং রাজনৈতিক কিছুটা হলেও সুফল আসবে। তাই আব্দুল মন্নান বাবু -কে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে দেখতে চায় এখানকার উঠতি ভোটাররা সহ বিভিন্ন শ্রেনি পেশার মানুষ। স্থানীয় তরুণ প্রজন্মের নেতা-কর্মীদের সাথে আলাপের মাধ্যমে এমন তথ্য জানা গেছে। তাদের মতে তরুণ এই নেতা এরই মধ্যে ভিটাবাড়ীয়া ইউনিয়নে দলকে অধিকাংশ ঐক্যবদ্ধ করা সহ মাঠে-ঘাটে মানব সেবায় কাজ করে মানুষের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি ভা-ারিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, ভিটাবাড়ীয়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকদলের নেতৃত্বের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি মানব সেবা করে স্থানীয় রাজনীতিতে নিজেকে টেনে নিয়ে এসেছেন জনপ্রিয়তায়। তাইতো নিজ দলীয় কর্মী-সমর্থকসহ এলাকাবাসীর অধিক আগ্রহের কারণেই মনস্থির করেছেন আগামী ভিটাবাড়ীয়া ইউপি নির্বাচনে ধানের শীর্ষে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে বিজয় আনার জন্য।

 

এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে স্থানীয় বিএনপি, জনপ্রতিনিধিসহ সহযোগী সংগঠনের নতুন প্রজন্মের নেতা-কর্মীরা জানিয়েছেন, এলাকাবাসীর অত্যন্ত আস্থাভাজন ও তাদের সুখ-দুঃখের অংশীদার হিসেবে বাবুকে আগামী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রর্থী হিসেবে দেখতে চান তারা। এ উপজেলার উঠতি ভোটারদের মতে বাবু ভাই স্থানীয় রাজনীতিতে যেভাবে সুসংগঠিত করে সাজিয়েছেন এবং নেতা-কর্মীদের আস্থা অর্জন করেছেন সেখানে বাবুর বিকল্প কোন প্রার্থী নাই, হতে পারেনা।

এ ব্যাপারে ভিটাবাড়ীয়া ইউনিয়ন যুবদলের সহ সভাপতি মশিউল আলম জলিল ও সাংগঠনিক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন খান বলেন, তরুণ এই রানৈতিক নেতা দিনের ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৪ ঘণ্টাই রাজনীতির পেছনে ব্যয় করেন। স্থানীয় জনগণ তাকে সব সময়েই কাছে পায়। তাই স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা-কর্মীগণ এমন একজন কর্মীবান্ধব নেতাকেই ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চায়।

 

উপজেলা শ্রমীক দলের সভাপতি ঈমান আলী ফরাজী বলেন,একজন তরুণ যোগ্য নেতা হিসেবে জনগণের সাথে রয়েছে তার যথেষ্ঠ সম্পৃক্ততা। মাদকের বিরুদ্ধে তিনি সব সময়ই সোচ্ছার ভুমিকা রেখে আসছেন যে কারনে আমরা সাধারণ জনগণই তাকে ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে পেতে চাই।
উপজেলা স্বেচ্ছা সেবক দলের নেতা ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম বাপ্পী বলেন বলেন, একদম তৃণমূল থেকে কিভাবে দলকে সু-সংগঠিত রাখতে হয়। কিভাবে তৃণমূলের একজন নেতা-কর্মীর মন জয় করা যায় এসব গুণাবলী তার মধ্যে বিদ্ধমান। তাই ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে বাবু খানকে পেতে চাই। পিরোজপুর জেলা বিএনপির সদস্য ম.মহিউদ্দিন খান দিপু জানান, ওই ইউনিয়নে বিএনপির ব্যাপক সাড়া আছে। কাজ করলে সুফল আসবে।

 

এ ব্যাপারে পিরোজপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি গাজী নুরুজ্জান বাবুল বলেন, তৃণমূল থেকে দলীয় রাজনীতির সাথে জড়িত এমন একজন প্রার্থীই আমরা দিবো।