ভগ্নদশায় স্বরুপকাঠির প্রাচীন যুগের বাবোরিয়া মসজিদ

প্রকাশিত: ৮:০৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৯, ২০২১

মুনির হোসেন, স্বরুপকাঠি প্রতিনিধি ॥ সম্রাট বাবরের আমলের তৈরি স্বরুপকাঠির (নেছারাবাদ) চারটি প্রাচীন মসজিদ ভগ্নদশায়। পিরোজপুরের স্বরুপকাঠি উপজেলার ইন্দের হাট বেপারী বাড়ি সংলগ্ন একটি, এর দেড় কিলোমিটার পশ্চিমে সোহাগদল বরছাকাঠির সরদার বাড়ি ও মৃধা বাড়ি দুইটি ও ছারছীনা দরবার শরীফ সংলগ্ন একটি, এ চারটি মসজিদই জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে ১৫২৮ সালে বাবরি মসজিদ তৈরির আগে ১৫২৬ সালের দিকে প্রথম মোঘল সম্রাট বাবরের শাসনামলে এ মসজিদ চারটি একই ডিজাইনে তৈরি হরা হয়। প্রতিটি মসজিদের দৈর্ঘ্য ২২ ফুট ও প্রস্থ ১২ ফুট ও ভিতরের মেঝে ৮ ফুট প্রস্থের। মসজিদগুলোর তিনটি দরজা ও ওপরে কারুকার্যের গোলাকার ছোট-ছোট তিনটি গম্বুজ রয়েছে যা লতা-পাতায় আগাছাপূর্ণ।

 

তবে মসজিদের ভিতরে তিনটি মিহরাবসহ চার কোণে রয়েছে চারটি কর্নার মিনার যা সম্রাট বাবরের আমলকেই প্রমাণ করে। এসব স্থাপনাগুলো মাটিতে দেবে যাওয়ার কারণে মসজিদগুলোর উ””তার সঠিক তথ্য পাওয়া যায় নি। প্রায় পাঁচ শ” বছর আগে মসজিদগুলোর অলঙ্কৃত দেয়ালের ফলক খসে পড়ে গেছে শত বছর আগেই। যার কারণে খোদাই করা নামের কোনো চিহ্ন না থাকলেও স্থানীয়রা অনেকে এসব মসজিদকে “বাবোরিয়া মসজিদ” নামেও চেনেন। প্রাচীন এসব মসজিদ নামাজ পড়ার উপযোগী না থাকলেও সৃষ্টিকর্তার সন্তুষ্টির জন্য স্থানীয়রা প্রতিবছর পৌষ- মাঘে শিন্নী-পায়েসের আয়োজন করেন।

 

অযত্নে আর অবহেলায় মসজিদগুলো তিন থেকে চার স্তর মাটির নিচে দেবে গেলেও গম্বুজগুলো স্মৃতিচারণে ভগ্নদশায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। তবে মসজিদে কোনো নির্দেশক শিলালিপি পাওয়া না গেলেও মোঘল আমলের প্রথম সম্রাট বাবরের বহু স্থাপনার গঠনরীতির সাথে এর মিল রয়েছে। যা সম্রাট বাবরের শাসনামলের সাক্ষ্য দেয়। মৃধা বাড়ি মসজিদের পাশে বাধাই করা একটি কবর রয়েছে। ধারণা করা হয় মসজিদটি যিনি রক্ষণা-বেক্ষণ করতেন এ কবরটি তারই। অযত্নে-অবহেলায় মাটির নিচে দেবে গিয়ে একফুটের মত উঁকি দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে এ কবরটি।

 

প্রাচীন এ নিদর্শনগুলো সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় রক্ষা করা গেলে অঞ্চলটি পর্যটক আকর্ষণের পাশাপাশি ইতিহাসমৃদ্ধ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সরকারিভাবে স্থাপনাগুলো টিকিয়ে রাখলে ভবিষৎ প্রজন্ম এ থেকে উপকৃত হবে এবং প্রাচীন ইতিহাস সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে স্থানীয়রা মনে করেন।