বিবাহিত শিক্ষক-শিক্ষিকার পলায়ন : হিজলায় পরকীয়া আতঙ্ক


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ১০:০০ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০২০

হিজলা প্রতিনিধিঃ বরিশালের হিজলা উপজেলায় বিবাহিত শিক্ষক-শিক্ষিকা পরকীয়া এক পর্যায়ে পালিয়ে বিয়ে আতঙ্কে চাকুরীজীবী স্ত্রীর স্বামীরা। জানা যায় হিজলা উপজেলা সদর টি টি এনডিসি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ জাকির হোসেন ও পূর্ব কৃষ্ণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মোঃ রফিকুল ইসলাম আকন এর স্ত্রী মোসা: সেলিনা পারভীন গত ২৬ আগস্ট বাপের বাড়ি যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান।

উভয়ই এক সন্তানের জনক-জননী। কিভাবে চাকরির এবং সেলিনা পারভীনের সম্পর্ক হয় এ বিষয়ে কয়েকজন শিক্ষক বলেন জাকির কিছুদিন শিক্ষা অফিসে কম্পিউটার ম্যান হিসেবে কাজ করতেন সেই সুবাদেই সেলিনা পারভীন অফিসিয়াল কাজে এসে জাকিরের সাথে সম্পর্ক হয় আর ওই সম্পর্কই চলে যায় এত গভীরে।

এতে করে হিজলা উপজেলা চাকুরীজীবী সকল স্ত্রীর-স্বামীরা এখন আতঙ্কে। কার বউ কখন কোথায় পালিয়ে যান।

এ বিষয়ে হিজলা উপজেলা একাধিক শিক্ষক বলেন, এটি সত্যিই একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা এতে করে শিক্ষক সমাজ কলঙ্কিত।

পালিয়ে যাওয়া শিক্ষিকা সেলিনা পারভীনের স্বামী বলেন, আমার স্ত্রী পালিয়ে গেছে তাতে আমার মোটেই দুঃখ নেই তবে আমার নয় বছরের শিশু সন্তান এখন এতিমের মতো। আমি আমার স্ত্রী সেলিনা কে বিয়ে করার পর নবম শ্রেণীতে রেজিস্ট্রেশন থেকে শুরু করে ইন্টারমিডিয়েট পর্যন্ত লেখাপড়া শিখিয়ে চাকুরী পাওয়া পর্যন্ত সমস্ত খরচ বহন করেছে। তিনি আরো বলেন, পালিয়ে যাওয়ার সময় আমার ৯ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

সেলিনা পারভীনের নব্যস্বামী সহকারি শিক্ষক জাকির হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল গাফফার এর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই এবং কোনো ধরনের অভিযোগ আমার নিকট আসেনি তবে লোকমুখে শুনেছি।