বিএনপি কর্মী পিতা-পুত্রকে আটকে আ’লীগ নেতার নির্যাতন, পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

প্রকাশিত: ৯:৪০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ::

আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয় নির্মাণে জমি প্রদান না করায় এক বিএনপি নেতা ও তাঁর পুত্রকে আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। বরিশাল নগরীর ২৩ নং ওয়ার্ড এলাকার বিট পুলিশিং কার্যালয়ে ঘটনাটি ঘটে গত বুধবার রাতে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মনিরুল ইসলাম নগরীর ২৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি। তবে নির্যাতনের কথা অস্বীকার করেছেন মনিরুল ইসলাম। উল্টো অভিযোগকারী স্থানীয় বিএনপি নেতা আলাউদ্দিন হাওলাদার ও তাঁর ছেলে ছাত্রদল নেতা হাসান আল হাসিবের বিরুদ্ধে ভূমিদস্যুতায় জড়িত থাকার দাবি করেছেন তিনি।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক আহবায়ক আলাউদ্দিন হাওলাদার ও তাঁর পুত্র বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক হাসান আল হাসিবকে বিট পুলিশিং কার্যালয়ে ডেকে নেয়া হয়। সেখানে যাবার পরে তাদের কাছে আলাউদ্দিন হাওলাদারের নামে রেজিস্ট্রিকৃত নগরীর সিঅ্যান্ডবি রোড (সদর উপজেলা পরিষদের সামনে) এলাকার কয়েক শতাংশ জমি দাবি করা হয়। উক্ত জমিতে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের কার্যালয় নির্মাণের কথা বলেন মনিরুল ইসলাম। এমন দাবির প্রতিবাদ করলে বিট পুলিশিং কার্যালয়ে উপস্থিত আওয়ামীলীগের একাধিক নেতাকর্মী হাসিব এবং তাঁর বাবার ওপর হামলা চালান।

অন্যদিকে, ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক নেতা আলাউদ্দিন ও তাঁর পুত্র ছাত্রদল নেতা হাসিবের বিরুদ্ধে অন্যের জমি দখল করার একাধিক অভিযোগ এসেছে বিট পুলিশিং কার্যালয়ে। এমনটাই জানিয়েছেন ২৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বিট পুলিশিং কার্যক্রমের সঙ্গে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে জড়িত মনিরুল ইসলাম। পিতা-পুত্রের জমি দখলদারি ঘটনার সুরাহা করতেই তাদেরকে ডাকা হয়। যেখানে নাকি উপস্থিত ছিলেন একাধিক অভিযোগকারী। যাদের জমি আলাউদ্দিন ও হাসিব অবৈধ ভোগদখল করছেন। উপস্থিত অভিযোগকারীদের সঙ্গে হাতাহাতি করে সেটাকে রাজনৈতিক রূপদান করেছেন অভিযুক্তরা এটাই দাবি মনিরুলের। তবে হাসান আল হাসিব জানান, নগরীর সিঅ্যান্ডবি রোড সংলগ্ন এলাকায় তাঁর বাবার নামে রেজিস্ট্রিকৃত জমিতে দোকান তৈরির কাজ চলছিল কিছুদিন যাবত।

গত বুধবার সন্ধ্যার পর স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মনিরুল ইসলাম তাকে এবং তাঁর বাবা ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক আহবায়ক আলাউদ্দিন হাওলাদারকে ফোন দেন। ফোনে দোকান নির্মাণের কাজ বন্ধ রেখে তৎক্ষণাত স্থানীয় কমিউনিটি বিট পুলিশিং কার্যালয়ে তাদেরকে আসতে বলা হয়। পরবর্তীতে সেখানে উপস্থিত হলে মনিরুল ইসলাম উক্ত দোকানের জায়গায় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয় নির্মাণ হবে বলে জানান। এই কথার প্রতিবাদ করলে মনিরুল ইসলাম এবং তাঁর বাহিনী পিতা-পুত্র দুজনকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করেন।

হাসিব বলেন,‘আমাদের নিজেদের জমি আওয়ামীলীগের অফিস করার নাম করে দখল করার পাঁয়তারা করেছিল মনিরুল ইসলাম। এজন্য আমাকে এবং আমার বাবাকে ডেকে নিয়ে প্রথমে হুমকি দেয়া হয়। আমি এর প্রতিবাদ করলে উপস্থিত একাধিক আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী আমার ওপর চড়াও হয়। উদ্ধারের জন্য আমার বাবা এগিয়ে এলে তাকেও লাঞ্ছিত করে তারা’।

আর এমন অভিযোগের ব্যাপারে মনিরুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন যাবত ভূমিদস্যুতায় জড়িত স্থানীয় আলাউদ্দিন হাওলাদার ও তার পুত্র হাসিব। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ এসেছে বিট পুলিশিং কার্যালয়ে। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে আলাউদ্দিন হাওলাদারের নির্মাণাধীন দোকানের কাজ বন্ধ করে দিয়ে আসে পুলিশ। ভবিষ্যতে যেন আর কারো জমি অবৈধ ভোগদখলের চেষ্টা না করেন সেজন্য তাদের দুজনকে নির্দেশ দেবার উদ্দেশ্যে বিট পুলিশিং কার্যালয়ে ডেকে নেওয়া হয়। কিন্তু সেখানে উপস্থিত হয়ে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগকারীদের সঙ্গে হাতাহাতিতে লিপ্ত হন পিতা -পুত্র দুজনে।

মনিরুল ইসলাম বলেন,‘ সিঅ্যান্ডবি রোড এলাকায় বেআইনিভাবে হাসিব ও তাঁর বাবা দোকান নির্মাণ করছিলেন। খবর পেয়ে পুলিশ গত বুধবার বিকেলে দোকানের নির্মাণকাজ বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে সেদিন রাতে তাদের দুজনকে নিয়ে বিট পুলিশিং কার্যালয়ে আমরা মীমাংসায় বসি। কিন্তু এই দুজনার বিরুদ্ধে যারা অভিযোগ করেছেন তাদের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন হাসিব। এখন সেটাকে এভাবে রাজনৈতিক রূপ দিয়ে সাধু সাজার চেষ্টা করা হচ্ছে’।

অন্যদিকে, ২৩ নং ওয়ার্ড বিট পুলিশিং কার্যক্রমের দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা (উপ – পরিদর্শক, কোতোয়ালি মডেল থানা) মোঃ শাহজালাল মল্লিক জানান, সদর উপজেলা পরিষদের জমিতে অবৈধভাবে দোকান নির্মাণ হচ্ছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে গত বুধবার সিঅ্যান্ডবি রোড এলাকায় পুলিশ যায়। সেখানে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় পুলিশ দোকান নির্মাণ কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। এরপর কাদের সঙ্গে বিট পুলিশিং কার্যালয়ে কি হয়েছে সে ব্যাপারে তিনি অবগত নন।

Sharing is caring!