বাবুগঞ্জে প্রশাসনের নজরদারিতে পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল

প্রকাশিত: ১০:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০

আরিফ হোসেন, বাবুগঞ্জ প্রতিনিধি ::

বাবুগঞ্জে প্রশাসনের নজরদারিতে পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ আমীনুল ইসলাম এর কঠোর নজরদারির কারণে পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা কমেছে। গত বুধবার বাবুগঞ্জের হাট বাজারে ৮০ থেকে ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া দেশি পেঁয়াজ প্রকার ভেদে বৃহস্পতিবার ৬০ থেকে ৭০টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। বুধবার ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া ভারতীয় পেঁয়াজের দামও শুক্রবার কেজিপ্রতি ১০ টাকা কমেছে। পাইকারি বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরে। তবে খুচরা বাজারে স্থান ভেদে দামের কিছুটা তারতম্য দেখা যায়।

বাবুগঞ্জ উপজেলায় পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল রাখতে বৃহস্পতিবার দিনভর অভিযান চালিয়েছে উপজেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। বৃহস্পতিবার বাবুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আমীনুল ইসলাম এর নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়।

অভিযানকালে বিভিন্ন বাজারে পেঁয়াজ ক্রয়-বিক্রয়ের মেমো যাচাই করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। তবে বড় ধরনের কোনো ব্যবধান না পাওয়ায় কাউকে জরিমানা করা হয়নি। এ সময় পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীলতার বিরুদ্ধে আড়তদারদের সতর্ক করে দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ সময়ে মাধবপাশা বাজারে ১টি দোকানে নিষিদ্ধ পলিথিন বিক্রয় ও ৩টি দোকানে ডিলিং লাইসেন্স ছাড়া শিশুখাদ্য বিক্রয় করায় বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন, ১৯৯৫ ও অত্যাবশকীয় পণ্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ১৯৫৬ অনুযায়ী ৪ দোকানির নিকট হতে ২ হাজার টাকা করে ৮ হাজার টাকা অর্থদÐ আদায় করা হয়। উপজেলার রহমতপুর বাজারে পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার প্রত্যয়ন ছাড়া মাংস বিক্রয় করায় ২ মাংস ব্যবসায়ীর নিকট হতে পশু জবাই ও মাংসের মান নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১১ অনুযায়ী ৪৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড আদায় করা হয়।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ আমীনুল ইসলাম জানান, জনস্বার্থে মোবাইল কোর্টের এ অভিযান নিয়মিত অব্যাহত থাকবে। মোবাইল কোর্টের আইনানুগ কার্যক্রমে তিনি সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

Sharing is caring!