বানারীপাড়ায় সেই মানবিক এএসআই জাহিদের অনন্য দৃষ্টান্ত

প্রকাশিত: ১২:১৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০২০

রাহাদ সুমন, বানারীপাড়া প্রতিনিধি ॥ বরিশালের বানারীপাড়ায় সেই মানবিক পুলিশ কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম এক মানসিক প্রতিবন্ধীর হাত-পায়ের নখ কেটে দিয়ে আবারও প্রমাণ করলেন মানুষ মানুষেরই জন্য। খোকন নামের এক মানসিক ও শারীরিক প্রতিবন্ধী যুবক দীর্ঘ দিন ধরে বানারীপাড়া পৌর শহরে ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। দীর্ঘদিনেও হাত পায়ের নখ ও চুল না কাটা, দাঁত না মাজা ও গোসল না করা সহ নানা অনিয়মের ফলে তার শরীরে রোগ জীবাণু ছড়ানোর পাশাপাশি অন্যকেও সংক্রমিত করার আশংকা দেখা দেয়।

এ বিষয়টি নজরে পড়ে বানারীপাড়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক জাহিদুল ইসলামের। তিনি মঙ্গলবার দুপুরে প্রতিবন্ধী খোকনকে বানারীপাড়া পৌর শহরের বন্দর বাজারে পেয়ে নিজ হাতে পরিবারের সদস্যদের মতো পরম যতেœ তার হাত-পায়ের নখ কেটে দেন। এছাড়া তার চুল কাটা, নতুন পোশাক ও পেস্ট-ব্রাশ ক্রয়ের ব্যবস্থা করে দেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে মানবতার ফেরিওয়ালাখ্যাত বানারীপাড়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক জাহিদুল ইসলাম বলেন, প্রতিবন্ধী খোকন নোংরাভাবে চলাফেরা করায় শুধু তার নিজের শরীরেই রোগ জীবাণু ছড়ানোর আশংকা সৃষ্টি করেননি, তার শরীর থেকে অন্যদের শরীরেও সংক্রমণ ছড়াতে পারতো। ফলে তাকে রোগজীবাণুর হাত থেকে রক্ষা করতে এ উদ্যোগ। তিনি আরও বলেন, প্রতিবন্ধী খোকনতো আমার ভাই কিংবা স্বজনও হতে পারতেন। প্রসঙ্গত, বানারীপাড়া থানায় কর্মরত সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) জাহিদুল ইসলাম করোনাভাইরাসে মৃত্যু হলে তাদের লাশ দাফনের জন্য ১৭ শতক জমি দান করেছেন। তার নিজবাড়ি পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ উপজেলার সুবিদখালি ইউনিয়নের দেউলি গ্রামের মরহুম ইসমাইল সিকদার কল্যাণ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. জাহিদুল ইসলাম ও তার পরিবারের অন্য সদস্য’রা কবর স্থানের জন্য এ জমি দান করেন।

এছাড়া তিনি বানারীপাড়ায় করোনাভাইরাসের বিস্তৃতি রোধে লকডাউন ও হোম কোয়ারেন্টিনে থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়া হতদরিদ্রদের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য ও পণ্য সামগ্রী এবং শিশুসহ কর্মহীনদের অলস সময়পার করতে ধর্মীয়গ্রন্থ ও খেলার সামগ্রী বিতরণ করে, কখনও গ্রামের চলাচল অনুপযোগী রাস্তার ঝোপঝাড় পরিষ্কার করে চলাচল উপযোগী করে দিয়ে, কখনও সড়ক দুর্ঘটনায় পা হারানো যুবককে হাঁসের খামার ও প্রতিবন্ধী যুবককে মুরগীর খামার করে দিয়ে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেওয়া আবার কখনও শতবর্ষী অসহায় বৃদ্ধের পাশে দাঁড়িয়ে নগদ অর্থ ও নিজের রেশনের চাল-ডাল-তেল ও চিনি দিয়ে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

এসব কাজ করে তিনি এলাকায় একজন মানবিক পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে সর্বমহলে প্রশংসা ও সুনাম কুড়িয়েছেন। উল্লেখ্য, এ এস আই জাহিদুল ইসলাম তার এ মানবিক গুণাবলীর কারণে ৭ বার বরিশাল জেলার শ্রেষ্ঠ এএসআই হিসেবে পুরস্কৃত হন।

Sharing is caring!