বাকেরগঞ্জে ইউপি সদস্যের অবৈধ দোকান উচ্ছেদ

প্রকাশিত: ১০:১৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাকেরগঞ্জে এক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্যের অবৈধ দোকান উচ্ছেদ করেছে বরিশাল জেলা প্রশাসন। গতকাল সোমবার (২০ জুলাই) দুপুরে বাকেরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ তরিকুল ইসলাম এর নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে অবৈধ স্থাপনাটি গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। এসময় দুটি খাবার দোকান (বেকারি) ও দুটি খাবার হোটেলের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ দেখে প্রতিষ্ঠানগুলোর মালিককে মোট ত্রিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সরকারি বিধি উপেক্ষা করে উপজেলার কামারখালী বাজারে নিয়ম বহির্ভূত পাকা দ্বিতল দোকান স্থাপনের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিলেন দাড়িয়াল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রফিকুল ইসলাম। বিষয়টি স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত দুদিন আগে বাকেরগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ তরিকুল ইসলাম এর নির্দেশে দাড়িয়াল ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ এনামুল হক স্থাপনা নির্মাণের কাজ বন্ধ করার মৌখিক নির্দেশনা দেন।

কিন্তু নির্দেশনা না মেনে পুরোদমে নির্মাণ কাজ অব্যাহত রাখেন রফিকুল। পরবর্তীতে এ খবর পেয়ে বরিশাল জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী গতকাল দুপুরে উক্ত স্থানে উপস্থিত হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করে উপজেলা প্রশাসন। এই অভিযানে রফিকুল ইসলামের মালিকানায় নির্মাণাধীন অবৈধ স্থাপনা ভেঙে ফেলা হয়।

এছাড়া ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনাকালে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বেকারি পরিচালনা করার দায়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর বিভিন্ন ধারায় আল মদিনা এবং আল আরাফাত নামে দুটি বেকারির মালিকের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা করে মোট ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। পাশাপাশি মোতালেব হোসেন এবং দিলীপ চন্দ্র দাসের মালিকানাধীন দুটি খাবার হোটেলকে ৫ হাজার টাকা করে মোট ১০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বাকেরগঞ্জ শার্শী থানার তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মোঃ যোবায়ের আহমেদ, দাড়িয়াল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ বাবুল আক্তারসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা প্রসঙ্গে উপজেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার মোঃ তরিকুল ইসলাম বলেন,’ বরিশাল জেলা প্রশাসকের অনুমতি ব্যতীত কিংবা নির্দিষ্ট জায়গার বাইরে কোনভাবেই হাট বাজারের স্থায়ী স্থাপনা তৈরি করা যাবেনা। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন কাজ করে যাবে’। এসময় তিনি সবাইকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহবান জানান।

Sharing is caring!