বরিশাল থেকে পশ্চিমাঞ্চলের ১০ রুটে বাস ধর্মঘট : ৭ ঘণ্টা পর প্রত্যাহার

প্রকাশিত: ৯:২৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিআরটিসি এবং লোকবাস শ্রমিকদের মধ্যে মারামারির ঘটনার প্রতিবাদে বরিশাল থেকে পশ্চিমাঞ্চলের ১০ রুটে যাত্রীবাহী বাস চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেন রূপাতলীর বাস শ্রমিকরা। পরে পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক এর আশ^াসে সাত ঘণ্টা পরে পুনরায় পশ্চিমাঞ্চলের সকল রুটে বাস চলাচল শুরু করেন শ্রমিকরা। রবিবার সকাল ৬টার থেকে বাস ধর্মঘট ডাক দিয়ে একই দিন দুপুর ১টার দিকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয় বলে জানিয়েছেন বরিশাল-পটুয়াখালী বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির নির্বাহী সভাপতি রফিকুল ইসলাম মানিক। আন্দোলনের বিষয়ে বরিশাল জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ জানিয়েছেন, ‘পিরোজপুর ও ভা-ারিয়ায় যাত্রী তোলা নিয়ে বিআরটিসি বাস শ্রমিক ও এজেন্টদের সাথে রূপাতলী থেকে খুলনাগামী একটি বাসের শ্রমিকদের সাথে দুই দফা কথা কাটাকাটি হয়।

 

এসময় বিআরটিসি বাস শ্রমিক ও এজেন্ট মিলে লোকাল বাস শ্রমিকদের ওপর হামলা এবং মারধর করে। খবর পেয়ে স্থানীয় থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি তাদের মীমাংসা করে দেয়। তবে পুলিশের বিচার নিরপেক্ষ হয়নি দাবি করে ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে ধর্মঘটের ডাক দেন শ্রমিকরা।

 

ঘোষণা অনুযায়ী রবিবার ভোর ছয়টা থেকে বরিশাল থেকে ঝালকাঠি-পিরোজপুর-খুলনা-মঠবাড়িয়াসহ পশ্চিমাঞ্চলের অভ্যন্তরীণ ১০টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেন রূপাতলীর বাস শ্রমিকরা। হঠাৎ করেই বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় ভোগান্তিতে পড়তে হয় ওইসব রুটের যাত্রীদের। বাস না পেয়ে যাত্রীরা বিকল্প ব্যবস্থায় গন্তব্যের উদ্দেশে যাত্রা করেন। অনেকে আবার ফিরে যান নিজ নিজ বাড়িতে।

 

বরিশাল-পটুয়াখালী বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির নির্বাহী সভাপতি রফিকুল ইসলাম মানিক বলেন, ‘শ্রমিকদের মারধরের ঘটনায় সুষ্ঠু সমাধানের আশ^াস দিয়েছেন পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক। এতে শ্রমিকরা আশ^স্ত হয়ে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। সেই সাথে দুপুর ১টায় বরিশাল থেকে পশ্চিমাঞ্চলের সকল রুটে বাস চলাচল স্বাভাবিক এবং যাত্রীদের ভোগান্তি দূর হয়।