বরিশালে লঞ্চে নারী যাত্রীর খুৃনির স্বীকারোক্তি

প্রকাশিত: ২:২১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০
smart

স্টাফ রিপোর্টার ::

বরিশাল নদীবন্দরে ঢাকা-বরিশালগামী পারাবত(১১) লঞ্চের ৩৯১ কেবিনে সোমবার খুন হওয়া নারী জান্নাতুল ফেরেদৌসীর হত্যাকারী মো. মনিরুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে রাজধানীর মীরপুর-১ থেকে মঙ্গলবার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের একটি টিম তাকে গ্রেপ্তার করে। এনিয়ে পিবিআই বরিশালে পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির বুধবার সকাল দশটায় প্রেস কনফারেন্স করেন।

পুলিশ সুপার বলেন, হত্যাকারী মনিরুজ্জামানের বাড়ি গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া থানায়। ১৩ সেপ্টেম্বর জান্নাতুল ফেরদৌসকে নিয়ে পারাবত লঞ্চের কেবিনে ঢাকা থেকে রওনা হন।

সকালে মনিরুজ্জামান জান্নাতুলের গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যা করে লঞ্চ থেকে নেমে যান। নৌপুলিশ লাশ উদ্ধার করার পর আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে মনিরুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই। তিনি হত্যার দায় স্বীকার করেছেন বলে প্রেস কনফারেন্সে জানান পিবিআইর পুলিশ সুপার।

অন্যদিকে এঘটনায় বরিশাল নদী-বন্দর সদর থানার এস আই অলক চৌধুরী বাদী হয়ে কোতয়ালী মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
অপরদিকে মঙ্গলবার বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে লাশের ময়না তদন্ত শেষে জান্নাতুল ফেরদৌসি লাবনীর লাশ পিতা আঃ লতিফ মিয়ার কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ।

প্রসংগত, গত ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকা নৌ-বন্দর ঘাটে পারাবত (১১) এর ৩৯১ নং কেবিনটি জনৈক কামরুলের নামে বুক করা হয়। এবং সন্ধ্যার দিকে ফেরদৌসি ও অজ্ঞাতনামা এক পুরুষ ব্যক্তি লঞ্চে উঠেন।

১৪ সেপ্টেম্বর বরিশাল ঘাটে লঞ্চ নোঙর করার পর সকল যাত্রী নেমে গেলে উক্ত ৩৯১ নং কেবিনের যাত্রী না নামায় কক্ষে খোঁজ নিতে বয়রা গিয়ে খাটে উপর মরে থাকা অবস্থায় দেখতে পেয়ে নৌ-পুলিশদের খবর দেয়।

পর্যায়ক্রমে মডেল কোতয়ালী থানা পুলিশ ও ক্রাইম সিন পুলিশ নিজ নিজ ভাবে তদন্ত করে এবং লঞ্চের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ থেকে খুনিকে শনাক্ত করে।

Sharing is caring!