বরিশালে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৮:২৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৪, ২০২০

শফিক মুন্সি :: যথাযোগ্য মর্যাদায় বরিশালে নানা আয়োজনে পালিত হয়েছে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। সোমবার দিনব্যাপী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংগঠন ও রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে এসব কর্মসূচি পালন করা হয়।

এ উপলক্ষে সকাল ৯টায় বরিশাল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবস্থিত শহিদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়। জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমানের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

 

সকাল সাড়ে ৯টায় জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নগরীর সোহেল চত্বরস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পৃথকভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একেএম জাহাঙ্গীর।
এরপর বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে সেখানে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন প্যানেল মেয়র, ত্রিশটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও মহিলা কাউন্সিলরবৃন্দ।

 

বেলা ১১ টায় জেলা প্রশাসনের সভা কক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তৌহিদুজ্জামান পাভেলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক এস এম অজিয়র রহমান। এছাড়া বিশেষ অতিথি ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) পরিচালক প্রফেসর মো. মোয়াজ্জেম হোসেন, মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার খান মো. আবু নাসের, জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন মানিক বীর প্রতীক প্রমুখ।

এদিকে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে বেলা ১২ টার দিকে বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে অনলাইন আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। প্রধান বক্তা হিসেবে সভায় অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড.আতিউর রহমান। এর আগে সেখানকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে উপাচার্য ড. মোঃ ছাদেকুল আরেফিনের নেতৃত্বে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন সেখানকার শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ‘ শত্রুরা বুঝে গিয়েছিল প্রগতিশীল বাংলাদেশের উত্থান অনিবার্য। তাই চূড়ান্ত ক্ষতিসাধনের উদ্দেশ্যে স্বাধীনতার ঠিক আগ মুহূর্তে দেশের মেধা নষ্ট করার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ে হানাদার – রাজাকার গোষ্ঠী। তবে স্বাধীনতার এত বছর পরেও এই গোষ্ঠীটি এখনো সমাজে বিদ্যমান। রাজাকার – আলবদর বাহিনীর উত্তরসূরীরা আজও বাংলাদেশের প্রগতি রুখে দিতে তৎপর ‘। দুপুরে (বাদ যোহর) নগরীর বিভিন্ন মসজিদে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যায় নগরীর সদর রোডস্থ বিবির পুকুর পাড়ে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন ও শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন বিভিন্ন সাংস্কৃতিক – সামাজিক সংগঠনের কর্মীবৃন্দ।