বরিশালে মাস্ক না পরায় ৬৩ ব্যক্তি ও পরিবহনে জরিমানা

প্রকাশিত: ১১:২২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১০, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’ নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রচারণা ও মোবাইল কোর্ট এবং সচেতনতামূলক কার্যক্রম শুরু করেছে বরিশাল জেলা প্রশাসন।
মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) অভিযানের প্রথম দিনেই মহানগরীসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় মাস্ক না পরায় ৬৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এবং পরিবহনে ৩৩ হাজার ২শত টাকা জরিমানা করা হয়েছে। যার মধ্যে ৩৫ জন ব্যক্তি ও বাকি পাঁচটি প্রতিষ্ঠান।

বরিশাল জেলা প্রশাসনের মিডিয়া সেলে জানানো হয়েছে, ‘করোনার সম্ভাব্য দ্বিতীয় সংক্রমণ প্রতিরোধে জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান জেলার সর্বত্র স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণে ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস, মাস্ক পরুন, সেবা নিন’ শীর্ষক প্রচারণার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন।

পাশাপাশি গৃৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়নে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার নগরীসহ বরিশাল জেলার ১০টি উপজেলায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, মাস্ক বিতরণ ও সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

এর মধ্যে বরিশাল নগরীতে তিনটি মোবাইল কোর্টের টিম অভিযান পরিচালনা করেন। এর মধ্যে সদর রোড ও গির্জা মহল্লা এলাকায় মাস্ক পরিধানের ওপর মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুমানা আফরোজ। এসময় দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারা মোতাবেক ৪ ব্যক্তিকে এক হাজার ১৪শত টাকা অর্থদ- প্রদান করা হয়।
সদর রোডের কাকলীর মোড় ও টাউন হল এলাকায় মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান। এসময় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৫টি দোকান ও শপিংমলে মোট চার হাজার টাকা জরিমানা করেছেন তিনি।

এছাড়া মেডিকেল কলেজ, চৌমাথা ও নথুল্লাবাদ এলাকায় অপর একটি মোবাইল কোর্ট অভিযানের নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আতাউর রাব্বী। এসময় স্বাস্থ্যবিধি না মানা ৭ ব্যক্তিকে ৪ হাজার ৭শত টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

অপরদিকে বাকেরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাধবী রায় ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. তরিকুল ইসলাম। এসময় বিভিন্ন পথচারী এবং প্রতিষ্ঠানকে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করেন তারা।

বাবুগঞ্জ উপজেলায় মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আমীনুল ইসলাম। এসময় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ছয় ব্যক্তিকে পাঁচশত টাকা করে মোট ৩ হাজার টাকা জরিমানা হয়। একই সময় হিজলা-বরিশাল রুটে মাস্ক ছাড়াই যাত্রী পরিবহন করায় একটি বাসের চালককে ৩ হাজার ও মাহেন্দ্র যাত্রী ও চালকদের আরও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন তিনি।

গৌরনদী উপজেলার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফারিহা তানজিন। এসময় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৬ ব্যক্তিকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করেন তিনি।

হিজলা উপজেলার গুয়াবাড়িয়া ইউনিয়নের কাউরিয়া বাজারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ও মাস্ক পরিধানে উদ্বুদ্ধ করতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বকুল চন্দ্র্র কবিরাজ। এসময় মাস্ক না পরায় ১০ জনকে মোট ২ হাজারর টাকা জরিমানা করেন তিনি।

বানারীপাড়া উপজেলার ফেরীঘাট, সদর রোড, বন্দর বাজার, বাসস্ট্যান্ড, হাসপাতাল ও উপজেলা পরিষদের সম্মুখে মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ আবদুল্লাহ সাদীদ। এসময় মাস্ক না পরা এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ২৩ জনকে মোট ৩ হাজার ৪শত টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
মোবাইল কোর্ট অভিযানকালে ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’ এবং স্বাস্থ্যবিধি সম্বলিত ব্যানার, লিফলেট বিতরণ এবং মোবাইল কোর্টে জরিমানা করা ব্যক্তিদের বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ। তাদের এই অভিযানে সহযোগিতা করেন বরিশাল মেট্রোপলিটন ও জেলা পুলিশের পৃথক পৃথক টিম।

এ প্রসঙ্গে বরিশাল জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান জানিয়েছেন, ‘বরিশালবাসীর কল্যাণে করোনা ভাইরাস এর সম্ভাব্য দ্বিতীয় সংক্রমণ প্রতিরোধে জেলা প্রশাসনের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।