বরিশালে বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকা বিলি-বিক্রি না করার হুমকি

প্রকাশিত: ১১:৪১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১১, ২০২০

খবর বিজ্ঞপ্তি ॥ ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার বরিশালের একক এজেন্সি বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন হকাররা। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে নগরীর ফজলুল হক এভিনিউ সড়কে বরিশাল সদর সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের উদ্যোগে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। এসময় একক এজেন্সি বাতিল করে পূর্বের ন্যায় বরিশাল নগরীর তিনটি এজেন্সির মাধ্যমে আর তা না হলে হকার্স ইউনিয়নের মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকাটি বিপণনের দাবি জোর দাবি জানিয়েছেন সংবাদপত্র হকার্স নেতৃবৃন্দ। এ ক্ষেত্রে সেখান থেকেই নগদ টাকায় পত্রিকাটি বিক্রি করবেন ইউনিয়নের সদস্যরা।

মানববন্ধনকালে বরিশাল সদর সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হানিফ হাওলাদার বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন প্রকাশের পর থেকেই আমরা এ পত্রিকাটি বিক্রি করে আসছি। আর শুরু থেকেই পত্রিকাটি বরিশাল নগরীর তিনটি এজেন্সির মাধ্যমে বিক্রি হচ্ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে একটি মাত্র এজেন্সির মাধ্যমে এ পত্রিকাটি বিক্রি করা হচ্ছে। যার কারণে আমাদের অনেক হকার চাহিদামত বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকাটি পাচ্ছেন না। পত্রিকাটি যাতে চাহিদা মতো পেতে পারেন সে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পত্রিকা কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানান সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের সভাপতি মোহাম্মদ মাজাহারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন প্রকাশের পর থেকে কোন হকার এক কপি সৌজন্য পত্রিকা পাননি। প্রতি বছর পত্রিকা হকার্স ইউনিয়নের সকল সদস্য মিলে আনন্দ ভ্রমণ করেন, সেখানেও সাহায্য সহযোগিতা করেনি পত্রিকা কর্তৃপক্ষ।

তারা আক্ষেপ করে বলেন, ‘করোনার মধ্যে পত্রিকা ছাড়া হকাররা ভীষণ সমস্যায় আছেন। অনেকের বাসা ভাড়া চার থেকে পাঁচ মাস বকেয়া পড়েছে। বাংলাদেশ প্রতিদিন ঢাকার হকারদের মাঝে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে। অথচ আমরা তা থেকে বঞ্চিত হয়েছি।

তিনি বলেন, ‘প্রথম আলো পত্রিকার সম্পাদক মতিয়ার রহমান স্যার বলেছেন, করোনা উপলক্ষে আমি হকারদের জন্য পাঁচ শতাংশ কমিশন বৃদ্ধি করেছি। কিন্তু আমরা হকাররা কমিশন তো দূরের কথা, কোন পত্রিকার মালিকের কাছ থেকে কোন সহযোগিতা পাইনি। আমরা মনে করছি আমাদের সাথে প্রতারণা করা হচ্ছে। তাই মানববন্ধনের মাধ্যমে আগামী তিন দিনের মধ্যে একক এজেন্সি বাতিল না করা হলে বরিশালে বাংলাদেশ প্রতিদিন বিলি ও বিক্রি বন্ধের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন সংবাদপত্রের হকাররা।

Sharing is caring!