বরিশালে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন, অসুস্থ প্রেমিকা

প্রকাশিত: ১:৩৩ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করতে এসে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন প্রেমিকা। পরে থানা পুলিশের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরের দিকে বরিশাল সদর উপজেলার চরমোনাই ইউনিয়নের বুখাইনগর রাজধর গ্রামের বাড় বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে।

অসুস্থ হয়ে পড়া প্রেমিকা ১৮ বছর বয়সী তরুনী গাজীপুরের শ্রীপুর থানাধীন মাওনা গ্রামের বাসিন্দা। তবে সে তার বাবা-মায়ের সাথে রাজধানীর মীরপুর ১২ নম্বরে থাকেন।

এছাড়া তার প্রেমিক মেহেদী হাসান অভি (৩০) বরিশাল সদর উপজেলার চরমোনাই ইউনিয়নের বুখাইনগর রাজধর গ্রামের বড় বাড়ির বাসিন্দা আব্দুল হাই মন্টুর ছেলে।

শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তরুনী জানান, ‘মেহেদী হাসান অভি’র সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। বিয়ের প্রলভন দেখিয়ে ইতিপূর্বে মেদেহী তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। এতে ওই তরুনী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। বিষয়টি তরুনীর পরিবার যেনে যায়। তখন মেহেদী হাসান অভিকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে আজ না কাল বিয়ে করবে বলে কালক্ষেপণ করে। এক পর্যায় মেহেদী গত মে মাসে ওই তরুনীকে অবৈধভাবে গর্ভপাত ঘটাতে বাধ্য করে বলে অভিযোগ তাঁর।

তরুনী বলেন, ‘আমার পরিবার আমাদের এই সম্পর্ক মানতে নারাজ। তার তার ওপর কিছু দিন ধরে মেহেদী আমার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। তাই উপায় না পেয়ে বাধ্য হয়ে বরিশালে এসে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে মেহেদী হাসান অভি’র বাড়িতে অবস্থান নিয়ে অনশন করতে বাধ্য হয়েছেন।
তরুনী অভিযোগ করেন, ‘সকালে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিলে প্রেমিক মেহেদী আমাকে তাদের বাড়ি থেকে চলে যেতে হুমকি দেয়। এমনকি মেহেদী’র পরিবারও তাকে গ্রহন করতে অপরাগতা প্রকাশ করে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘটনা মিমাংশার চেষ্টা করেন। কিন্তু এরি মধ্যে ওই তরুনী অসুস্থ হয়ে মাটিতে ঢলে পড়েন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা কোতয়ালী মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মাহাবুব বলেন, ‘ওই তরুনী জাতীয় কল সেন্টার ৯৯৯ তে ফোন করে সহযোগিতা চায়। তখন কল সেন্টার থেকে কোতয়ালী মডেল থানাকে ব্যবস্থা নিতে বলে। পরে থানা থেকে আমাকে ওই বাড়িতে পাঠানো হয়।

তিনি বলেন, ‘আমি ওই বাড়িতে গিয়ে মেয়ের সাথে কথা বলি। সে জানিয়ে মেহেদী হাসান অভি’র সাথে তার ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় এবং পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়। তখন মেহেদীও ঢাকায় থাকতো। তরুনীর অভিযোগ কিছুদিন ধরে মেহেদী ওই ওই তরুনীর সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। এ কারনে সে মেহেদীর বাড়িতে এসেছে।

এএসআই মাহবুব বলেন, ‘মেয়ের কাছ থেকে বিস্তারিত জানার আগেই সে ঘরের মধ্যে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। সে গত দু’দিন ধরে কিছু না খেয়ে থাকায় কান্ত হয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। তাই তাকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে দিয়েছি। সেখানে ছেলের পরিবারের লোকজনও রয়েছে। তাছাড়া তরুনীর বাবা-মাকে খবর দেয়া হয়েছে। তারা আসলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।

Sharing is caring!