বরগুনায় স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহাদাত হোসেনকে শোকজ করলেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা

প্রকাশিত: ৯:৩৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৮, ২০২১

তরিকুুল ইসলাম রতন, স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরগুনায় আসন্ন পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী শাহাদাত হোসেনকে শোকজ করলেন জেলার রিটার্নিং কর্মকর্তা।
জানা যায়, রিটার্নিং কর্মকর্তার অ্যাপস ও মুজিব শতবর্ষের লোগো ব্যবহার করায় তাকে শোকজ করা হয়েছে। শোকজে উল্লেখ আছে একদিনের মধ্য তাকে এসবের জবাব দিতে হবে। আসন্ন বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে বরগুনা পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে জেলা নির্বাচন অফিসের কম্পিউটার ব্যবহার করেন এবং জেলা নির্বাচন অফিসের অ্যাপস ও মুজিব শতবর্ষের লোগো ব্যবহার করে গত ১২ জানুয়ারি তিনি তার পথসভার সময়সূচি প্রচার করেছেন।

তাই দলীয় প্রতীক নৌকার কর্মীরা ওই বিষয়গুলো জেলা নির্বাচন অফিসারের নজরে আনেন। রবিবার সন্ধ্যায় জেলা নির্বাচন অফিসার স্বতন্ত্র প্রার্থী মো.শাহাদাত হোসেনকে একদিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন।

এবিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শাহাদাত হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অ্যাপসটি আমার কম্পিউটারে খোলা ছিলো এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তো সবার। তাই আমি ব্যবহার করছি।

এছাড়াও তার কাছে নির্বাচন চলাকালীন সময় বঙ্গবন্ধুর মুজিব শতবর্ষের লোগো ব্যবহার করতে পারেন কিনা সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাতির জনকের ছবি সবাই দিতে পারে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বরগুনা জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সরোয়ার টুকু বলেন, বিদ্রোহী প্রার্থী শাহাদাত হোসেন জেলা নির্বাচন অফিসারের অ্যাপস ব্যবহার করেছেন। আমি জেলা নির্বাচন অফিসার দীলিপ কুমার হাওলাদারকে বলেছি। তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। আমি যতটুকু জানি বিদ্রোহী প্রার্থীকে তিনি শোকজও করেছেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ছিদ্দিকুর রহমান পান্না মিয়ার কাছে এব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বরগুনা জেলা নির্বাচন অফিসার একজন অসৎ লোক। তিনি টাকা ছাড়া কিছুই বুঝেন না।

তিনি আরও বলেন, আমিও একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী, আমি ১০০ জন ভোটারের স্বাক্ষর দিয়ে মেয়র পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছি এবং গত ৩ জানুয়ারি আমরা চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছি, আমি, জসীম উদ্দিন, সাহাবুদ্দিন ও নিজাম উদ্দিনের মনোনয়ন পত্র তিনি বাতিল করেন। পরে আমরা হাইকোর্টে রিট করেছি। আমাদের মনোনয়ন বাতিলের ক্ষেত্রে অভিযোগ ছিলো তিনটি স্বাক্ষর জাল।

অথচ মেয়র শাহাদাত হোসেনের মেয়ে মহাসিনা মিতুলের ১০০ ভোটারের সব স্বাক্ষরই জাল হওয়া সত্ত্বেও তার মেয়র পদে মনোনয়ন বৈধ করেছেন এই জেলা নির্বাচন অফিসার। এবিষয়ে বরগুনা জেলা নির্বাচন অফিসার দীলিপ কুমার হাওলাদার বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শাহাদাত হোসেন আমাদের সাথে প্রতারণা করেছেন। আমরা তার আচরণে বিব্রতবোধ করছি।

তিনি আরও বলেন, তিনি কেন আমাদের অ্যাপস ব্যবহার করেছেন সে জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শাহাদাত হোসেনকে শোকজ করা হয়েছে।