বরগুনায় সরকারি পুকুর দখল করে মাছ চাষ করছেন সাবেক গণপূর্ত’র সন্তান

প্রকাশিত: ১০:৪৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

তরিকুল ইসলাম রতন, বরগুনা প্রতিনিধি ::

বরগুনার পৌর শহরের সরকারি পুকুর দখল করে মাছের রেনু চাষ করছে এক প্রভাবশালী মহল।

জানা যায়, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য রফিকুল ইসলাম রফিক শহরের থানাপাড়া এলাকার গণপূর্ত বিভাগের পুকুরটির অধিকাংশ দখল করে মাছের রেনু চাষ করছেন।
তাছাড়াও তার বিরুদ্ধে সরকারি জমি দখল করে ব্যাক্তিগত অফিস বানানোর অভিযোগ উঠেছে।
প্রকাশ্যেই তিনি বেশ কয়েক বছর ধরে গনপূর্তের পুকুর দখল করে আছেন ।

বরগুনা পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের থানাপাড়া এলাকার মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে এই রফিকুল ইসলাম। তার বাবা ছিলেন বরগুনার গণপূর্ত বিভাগের সাবেক কর্মকর্তা।

এবিষয়ে স্থানীয়রা সাংবাদিকদের জানান,এই রফিকুল ইসলাম বিগত বেশ কয়েকবছর যাবত গণপূর্ত বিভাগের এই পুকুরটি দখল করে মাছ চাষ করে আসছেন। এবং পুকুরের পাশেই সরকারি জমিতে তিনি একটি অফিস তুলেছেন।
বর্তমানে এই অফিসটি কমিউনিটি পুলিশের বিট কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

গণপূর্ত সুত্রে জানা যায়, গত ১২ বছর ধরে গণপূর্ত বিভাগের সকল পুকুরের লিজ দেয়া বন্ধ আছে। ভবিষ্যতেও নিজেদের আর কোন পুকুর লিজ দেবে না গণপূর্ত বিভাগ। তাদের কোন পুকুরই বর্তমানে লিজ দেয়া নেই। যারা দখল করে আছে তারা অবৈধভাবে ভোগ করে আসছে। এমন কোন অবৈধ দখলদার সর্ম্পকে তথ্য পেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাও গ্রহন করবে গণপূর্ত বিভাগ।

দখলদার রফিকুল ইসলাম রফিকের কাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ডিসি অফিস থেকে আমি এই পুকুরটির লিজ নিয়েছিলাম। মেয়াদ শেষ হলে আমি পুনরায় লিজ নেওয়ার জন্য ডিসি অফিসে যোগাযোগ করলে তৎকালীন জেলা প্রশাসক বলেন গণপূর্ত বিভাগে যোগাযোগ করতে।
গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী বললেন, গনপূর্ত বিভাগের সকল পুকুর লিজ দেয়া বন্ধ আছে। পরে আমি তাকে বললাম সরকারি কোন উন্নয়নমূলক কাজের জন্য প্রয়োজন হলে আমি পুকুর ছেড়ে দেব।

তাছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ, দেশের কোন পুকুর বা জলাশয় খালি থাকবেনা। এখন সরকার যদি মনে করে যে আমার পুকুরের লিজ নাই, আমি অবৈধ তাহলে আমি অবশ্যই পুকুর ছেড়ে দেব।

বরগুনার গণপূর্ত বিভাগের এসডি আবদুল আজিজের কাছে এসব বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে যান।

Sharing is caring!