ববি শিক্ষার্থীকে লাঞ্ছিত : সড়ক অবরোধ : বাস কাউন্টার ভাঙচুর

প্রকাশিত: ৮:০৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২১

শফিক মুন্সি :: বিআরটিসি বাস কাউন্টারের স্টাফ কর্তৃক বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) দুই শিক্ষার্থীকে মারধর ও লাঞ্ছিত করার ঘটনায় রূপাতলী বাসটার্মিনাল এলাকার বরিশাল – পটুয়াখালী মহাসড়কে প্রায় দুই ঘন্টা অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা।এসময় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে তারা। এতে করে মহাসড়কের দুইপাশে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ যাত্রীরা। এরপর অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হলে অবরোধ তুলে নেয় শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার বেলা দুইটার দিকে বিক্ষোভ ও অবরোধ শুরু করে শিক্ষার্থীরা। তারা জানান, দুপুর সাড়ে বারোটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের দুই শিক্ষার্থী তৌফিকুল সজল ও ফারজানা আক্তার বাড়ি যাবার জন্য বিআরটিসি বাস কাউন্টারে যায়। সেখানে রফিক নামের বাস স্টাফের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় সজলের।

এর জের ধরে সজলকে ছুরিকাঘাত করে পরিবহন শ্রমিক রফিক। এছাড়া ফারজানাকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ করে তারা । এ ঘটনার সংবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়লে দেড়টার দিকে তারা ঘটনাস্থলে হাজির হয়। দুপুর দুইটা থেকে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ শুরু করা হয়।

দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে সরেজমিনে দেখা যায়, প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী মহাসড়কে বসে অবস্থান গ্রহণ করেছে। এরআগে উত্তপ্ত শিক্ষার্থীরা বিআরটিসি বাস কাউন্টারটি ভাঙচুর করে।শিক্ষার্থীদের সড়ক থেকে সড়িয়ে নিতে সেসময় স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ অবরোধকারীদের সঙ্গে দফায় দফায় আলোচনা করেন।

কিন্তু অভিযুক্ত রফিককে গ্রেফতার না করা পর্যন্ত সড়ক থেকে না যাবার ব্যাপারে নিজেদের সিদ্ধান্তের কথা জানান অবরোধকারী শিক্ষার্থীরা। এসময় বরিশাল, পটুয়াখালী ও খুলনাগামী বিভিন্ন দূরপাল্লার যানবাহন আটকা পড়ে মহাসড়কের দুপাশে। পরবর্তীতে বেলা সাড়ে তিনটার দিকে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয় তারা অভিযুক্ত রফিককে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।

গ্রেফতারকৃত রফিককে শনাক্তের জন্য আহত সজল এবং অবরোধকারী দুজন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সহায়তায় কোতোয়ালি মডেল থানায় যান। পরবর্তীতে তারা রফিককে গ্রেফতার করার বিষয়ে নিশ্চিত হলে প্রায় দুইঘন্টা পর সড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা।

এ ব্যাপারে সহকারী প্রক্টর সুপ্রভাত হালদার জানান, খবর পেয়ে তিনি সহ অন্যান্য শিক্ষকরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন এবং সমাধানের চেষ্টা করেন।আর কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে পরিবহন শ্রমিক রফিককে গ্রেফতার করা হয় । তিনি এ ব্যাপারে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস প্রদান করেন শিক্ষার্থীদের।