বঙ্গোপসাগরে ডাকাতি : ট্রলার, মাছ ও জাল লুট

প্রকাশিত: ৮:০৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২১

কামরুল হাসান রুবেল, রাঙ্গাবালী প্রতিনিধি ॥ পটুয়াখালীর রুপারচর সংলগ্ন পূর্ব-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে জেলেদের ট্রলারে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এসময় ডাকাত দল ১২ জেলেকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত-পা বেধে মারধর করে জাল ও মাছ সহ ট্রলার নিয়ে যায়। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে সশস্ত্র হামলার শিকার হন এই জেলেরা। এ ঘটনায় রাঙ্গাবালী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। ডাকাতের কবলে পড়া খালগোরা ভাই ভাই ফিশিংয়ের মালিক ঝন্টু হাওলাদার জানান, অতিসম্প্রতি জসিম মাঝির নেতৃত্বে ১২ জন জেলে রাঙ্গাবালী থেকে একটি ফিশিং বোট নিয়ে বঙ্গোপসাগরে ইলিশ শিকারে যান। জেলেরা রুপারচর সংলগ্ন জলসীমানায় পৌঁছালে ফাইবার বোট নিয়ে ৭-৮ জনের ডাকাত দল তাদের ধাওয়া করে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত-পা বেধে মারধর করে এবং মাছ, জাল ও ট্রলারসহ সকল মালামাল লুটে নেয়।

 

এসময় ডাকাত দল জেলেদের কাছ থেকে ফিশিং বোট ছিনিয়ে নিয়ে ১২ জেলেকে অপর একটি ট্রলারে উঠিয়ে দিয়ে তারা মধ্য সাগরে চলে যায়। পরদিন সকালে সাগরে ভাসমান অবস্থায় স্থানীয় জেলেদের সহযোগিতায় তারা উদ্ধার হন। ট্রলারে থাকা জসিম মাঝি জানান, রাত ১২টার দিকে একটি ফাইভার বোট নিয়ে আমাদের বোটের কাছে আসে ৭ জনের একটি ডাকাত দল। এসময় ৬ জনের মুখ বাধা এবং ১ জনের মুখ খোলা ছিল। তাদের কাছে ২ টি বন্দুক, ৩ টি বগি ও ৩টি ছেনা ছিল। প্রথমে তারা ট্রলারের আমাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ট্রলারটি তাদের ফাইবার বোটের সাথে বেঁধে ফেলে এবং ট্রলারের অন্যান্য জেলেদেরকে তাদের ফাইবার বোটে হাত-পা বেঁধে আটকিয়ে ফাইবার বোটটি ছেড়ে দিলেও ট্রলারের মিস্ত্রি মোসলেমকে তাদের ফাইবার বোটে করে নিয়ে যায়। পরে সকালে আমখোলা এলাকার সাগরে মাছ ধরা রত একটি ট্রলারের মাঝি তেল দিয়ে সহায়তা করায় দুপুর একটায় রাঙ্গাবালীতে এসে পৌঁছেন মোসলেম। তিনি আরও জানান, তাদের ট্রলারের মিস্ত্রি মোসলেমকে নিয়ে সকালে কলাপাড়ার লতাচাপলী এলাকার সাত নম্বর বয়া এলাকায় আরেকটি ট্রলারে ডাকাতি চালায় ওই দস্যুরা। পরবর্তীতে তাদের ট্রলারের মিস্ত্রি মোসলেমকে উঠিয়ে দেয়। জলদস্যুরা তাদেরকে মামা বাহিনীর সদস্য বলে দাবি করে।
এব্যাপারে রাঙ্গাবালী থানার ওসি দেওয়ান জগলুল হাসান জানান, এ ঘটনায় রাঙ্গাবালী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন ভিকটিম। তবে আমরা মোবাইল ট্যাগ করে দেখেছি ঘটনাস্থল মহিপুরথানাধীন। তাই মহিপুর থানায় অভিযোগ করার জন্য ভিকটিমদের বলা হয়েছে।