পাটকল বন্ধের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে নগরীতে বিক্ষোভ


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৩:৫৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দেশব্যাপী রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধ ও শ্রমিকদের স্বেচ্ছায় অবসরে পাঠানোর সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ বরিশাল জেলা কমিটি। গতকাল শনিবার বেলা ১২টায় নগরের অশ্বিনী কুমার হলের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে তারা। রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধের ঘোষণা জনগণ মানেনা। ‘সরকারের দুর্নীতি ভুলনীতিতে লোকসানের দায় জনগণ নেবেনা’, ‘রাষ্ট্রীয় পাটকলের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকলো যারা তাদের ক্ষমা নাই’ স্লোগান সম্বলিত ব্যানার নিয়ে বিক্ষোভ করে তারা। বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সমাজতান্ত্রিক দল বাসদের আহবায়ক ইমরান হাবিব রুমন।

সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের কথা বলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী কাজ করছে। করোনার এই মহামারির সময়ে তারা দেশের পাটকলগুলো বেসরকারিদের হাতে তুলে দিচ্ছে। তারা জনগণের কথা চিন্তা করেনা। তারা রাজাকারের মত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জামায়াতের মতিউর রহমান নিজামির পথ ধরে পাটকলগুলো বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। এই আওয়ামীলীগ সরকারের কাছে আজ কেউই নিরাপদ নয়। যেখানে সরকারি ২৫টি পাটকলের উন্নয়ন না করে সরকার পাঁচ হাজার কোটি টাকায় পাটকলগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। সরকারের এমন সিদ্ধান্ত লাক্ষ শ্রমিকের পেটে লাথি মারা ছাড়া আর কিছুই না।

তিনি বলেন, ‘সাবেক জামায়াতজোট ও বিএনপি সরকারের আমলে প্রায় দশ হাজার কোটি টাকা পুঞ্জীভূত দেনার দায়ে পড়ে দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত বিভিন্ন পাটকল। পূর্বের লে-অফ ঘোষণা করা মিলগুলো পর্যায়ক্রমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলে চালু করা হয়।

তিনি আরো বলেন, জামায়াতজোট ও বিএনপি সরকারের আমলে সরকারি নীতি নির্ধারকদের অশুভচক্রের ভুলে লোকসানের কবলে পড়েছিল মিলগুলো। বিএনপি সরকার আদমজী জুটমিলকে লোকসানজনিত প্রতিষ্ঠান বানিয়ে সেটা বন্ধ করেছিল। আওয়ামী লীগ সরকারও রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছে। সরকারের এমন সিদ্ধান্তের ধিক্কার জানাই। দেশের মধ্যে লুকিয়ে থাকা সেই চক্র বর্তমান সরকারকে কৌশলে আবারো রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলো বন্ধের পাঁয়তারা করছে। করোনার কারণে বর্তমানে লাখ লাখ লোক বেকার হয়ে পড়ছেন। যদি ৬ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করে উন্নত প্রযুক্তি সংযোজন করা যায় তাহলে এই পাটশিল্পকে আবারো দাঁড় করানো সম্ভব। এই সরকার শ্রমিক বান্ধব সরকার নয় বিধায় শ্রমিকদের দিন দিন মানবেতর জীবনযাপনের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। আমরা অবিলম্বে পাটকল বন্ধে সরকারের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি।

বিক্ষোভ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী।

তিনি বলেন, গত ২ জুলাই প্রজ্ঞাপন জারি করে দেশের ২৫ টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাট কল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। অথচ সরকার এটা ভাবেনি এই করোনার সময় মানুষ কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে। পাট শিল্প যখন বিশেষ লাভবান প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিণত হয়েছে সরকার তখনই এই শিল্পকে দুর্নীতিবাজদের হাতে তুলে দিচ্ছে। সরকারি কিছু মন্ত্রী ও আমলাদের হরিলুটের সুযোগ দেওয়ার জন্য সরকার এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই সরকার রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। রাষ্ট্র পরিচালনা করতে না পারলে ছেড়ে দেওয়ার কথা বলেন তিনি।

বর্তমানে আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জামায়াত এর মতো দলগুলোর কাছে মানুষ নিরাপদ নয় বলে মনে করেন তিনি। তাই আন্দোলন সংগ্রাম ও দেশ পরিচালনার ক্ষেত্রে বাম গণতান্ত্রিক জোটের বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন ডা. মনীষা।

এতে আরো বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের মহানগর শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক সুজন সিকদার, শ্রমিক ফ্রন্টের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম প্রমুখ।