পটুয়াখালীতে চাঁদার দাবিতে হামলা : মামলার আসামীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে

প্রকাশিত: ৭:৪২ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৭, ২০২০

মোঃ মেহেদী হাসান (বাচ্চু), পটুয়াখালী ::

পটুয়াখালীতে দুই লক্ষ টাকা চাঁদার দাবীতে গত ১৯ জুলাই ২০২০ তারিখ সন্ধ্যা ৭টার দিকে সংখ্যালঘু ব্যবসায়ীর উপর হামলা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর ঘটনায় পটুয়াখালী বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট১ম আমলী আদালতে বাদী হয়ে একটি সি আর মামলা দায়ের করেন হামলার স্বীকার বাদল দেবনাথ (৫৩)। যার মামলা নং-৪৪৩/২০, তাং-২২.৭.২০। মামলার আসামীরা হলো- টাউন জৈনকাঠীস্থ আঃ জব্বার মৃধা(৫৬) ও তার ছেলে জহির মৃধা (৩৫) এবং পুরান বাজারস্থ প্রিন্স মৃধা(৪৭) সহ আরও অপরিচিত ৮/১০ জন সন্ত্রাসী।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরনীতে জানাযায়, বাদী বাদল দেবনাথ দীর্ঘদিন ধরে পুরান বাজারে জি এম সুইটস নামক মিষ্টির দোকান দিয়ে ব্যবসা করে আসছে। মামলার আসামীরা পরস্পর আত্মীয়-স্বজন। আসামীরা প্রায়ই বাদীর মিষ্টির দোকানে ঢুকে মিষ্টি খেত এবং নিয়ে যেত টাকা চাইলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে বলতো এখানে দোকান পরিচালনা করতে হলে তাদেরকে দুই লক্ষ টাকা চাঁদা দিতে হবে। ঘটনার দিন আসামীরা পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে ১নং আসামী আঃ জব্বার মৃধার নেতৃত্বে অন্যান্য আসামীরা দেশীয় অস্ত্র দা, রামদা, ছেনা, লোহার রড সহ বিভিন্ন প্রাণণাশক অস্ত্র নিয়ে বাদী বাদল দেবনাথের কাছে দুই লক্ষ টাকা দাবী করে। টাকা দিতে রাজি না প্রথমে ১নং আসামী বাদীকে এলোপাথারি কিল, ঘুষি ও লাথি মেরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফুলা জখম করে। ২নং আসামী তার হাতে থাকা রামদার উল্টাপিট দিয়ে পিটিয়ে বাদীর ডান হাতের কজ্বির নীচে মারাত্মক নীলা ফুলা জখম করে।

এরপর সকল আসামীরা মিষ্টির দোকান ও মালামাল ভাংচুর সহ আনুমানিক ১০ মন মিষ্টি ও মিষ্টিজাত খাদ্য নষ্ট করে ষাট হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। এরপর ১নং আসামী দোকানের ক্যাশ বাক্সে থেকে নগদ পঁয়তাল্লিশ হাজার টাকা চাঁদার দাবিতে নিয়ে। ২নং আসামী বাদীর বুক পকেটে থাকা দুই হাজার পাঁচশত টাকা নিয়ে যায় এবং ৩নং আসামী বাদীর গলায় থাকা ষাট হাজার টাকা মূল্যের ১ভরি স্বর্ণের চেইন জোর করে নিয়ে যায়। আসামীরা ষাট হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে এবং এক লক্ষ সাত হাজার পাঁচ শত টাকা নিয়ে যাওয়ার সময় বাদীকে হুমকি দিয়ে যায় মামলা-মোকদ্দমা করলে খুন করে ফেলবে। আসামীরা চলে গেলে উপস্থিত স্বাক্ষীরা বাদী বাদল দেবনাথকে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করেন।

পরে বাদল দেবনাথ একটু সুস্থ্য হয়ে পটুয়াখালী বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ১ম আমলী আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত থেকে মামলাটি থানায় প্রেরণ করলেও থানা কর্তৃপক্ষ আসামীদের গ্রেফতারের বিষয়ে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করছেনা বলে বাদী বাদল দেবনাথের অভিযোগ।

এবিষয়ে পটুয়াখালী সদর থানার ওসি আখতার মোর্শেদ বলেন, বিজ্ঞ আদালত থেকে তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলে জন্য বলা হয়েছে। তদন্ত শেষে প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করার পরে যদি আসামীদের গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে তাহলে আসামীদের গ্রেফতার করা হবে।

 

Sharing is caring!