নির্যাতনের বিচার দাবিতে ঝালকাঠি থানার সামনে কিশোরীর অনশন


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৮:৪০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৮, ২০২০

আককাস সিকদার, ঝালকাঠি প্রতিনিধি ::

ঝালকাঠিতে নির্যাতনকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে থানার সামনে অনশন করেছে এক কিশোরী। বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে অনশনে বসে সে। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় গত ২ অক্টোবর দুপুরে ঘরে ঢুকে স্বর্ণ কিশোরী খেতাবপ্রাপ্ত কলেজছাত্রী নাছরিন আক্তার সারার (১৭) ওপর হামলা চালায় যুবায়ের আদনান নামে এক যুবক। এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই থানায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলার এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও পুলিশ আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। উল্টো বিষয়টি মীমাংসার জন্য বিভিন্ন মহল থেকে চাপ দেওয়া হয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওই কিশোরী প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে থানার সামনেই অনশনে বসে।

তাকে দেখে থানার সামনে ভিড় করে অসংখ্য মানুষ। মীমাংসা নয়, নির্যাতনের বিচার দাবি জানায় সারা। খবর পেয়ে সারার বোন ও ভগ্নিপতি এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তারাও ঘটনার বিচারের দাবি জানান। পরে পুলিশ এসে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আসামি গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিলে অনশন তুলে নেয় সারা। সারা ঝালকাঠি আকলিমা মোয়াজ্জেম ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী।

সারা জানায়, ঝালকাঠি সদর উপজেলার পোনাবালিয়া ইউনিয়নের একটি মসজিদের ঈমাম জাকির হোসেনের ছেলে জুবায়ের আদনান বেশকিছুদিন ধরে তাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে আদনান তাঁর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে গত শুক্রবার দুপুরে জুবায়ের আদনান ফকিরবাড়ি সড়কের সারার বড় বোন আখিনুরের ভাড়া করা বাসার গিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। মারধরের এক পর্যায়ে সারা জ্ঞান হারিয়ে ফেললে, আদনান পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে বড়বোন ও প্রতিবেশীরা সরাকে উদ্ধার করে তাকে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

অনশনে বসে সারা অভিযোগ করেন, মামলা তুলে নিতে আমার পরিবারকে জুবায়ের ও তাঁর সহযোগীরা চাপ প্রয়োগ করছে। এমনকি আমাদের নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। ইতোমধ্যেই কয়েকটি ফেসবুক আইডি দিয়ে আমার নামে অপপ্রচার করা হয়। এ অবস্থা চলতে থাকলে আমার আত্মহত্যা ছাড়া কোন উপায় থাকবে না। মীমাংসা নয়, নির্যাতনের বিচার দাবি করছি আমি।

৭২ ঘণ্টার মধ্যে যদি আসামি গ্রেপ্তার না করে, তাহলে আমি থানার সামনে এসে আত্মহত্যা করবো।

আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। আমরা অসহায় বিধায় মামলা তুলে নিতে চাপ দেওয়া হচ্ছে। যুবায়ের আদনানের বাবা আমাদের বিরুদ্ধে আদালতে একটি মিথ্যা নালিশি অভিযোগ করেছে। আমরা সারার ওপর নির্যাতনের বিচার চাই। আসামিকে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

ঝালকাঠি থানার উপপরিদর্শক (দ্বিতীয় কর্মকর্তা) মো. ফারুক হোসেন বলেন, মামলার পরে পুলিশ আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তাকে গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিলে অনশন তুলে নেয় সারা।