নদী ভাঙনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে বাবুগঞ্জ উপজেলার নদী তীরবর্তী পরিবারগুলো


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৯:২৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০২০

বার্তা ডেস্ক ॥ বাবুগঞ্জ উপজেলার সন্ধ্যা, সুগন্ধা ও আড়িয়াল খাঁ নদীর ভয়াবহ ভাঙনে ইতিমধ্যেই বিলীন হয়েছে শত শত ঘরবাড়ি, আবাদি জমি, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা।
ভাঙনে নিঃস্ব হয়েছে হাজারও পরিবার। প্রতিনিয়তই বিনিদ্র রাত কাটাচ্ছে ভাঙন কবলিত পরিবারগুলো।

অনেকেই নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য বাড়ি ঘর অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে সড়কের পাশে আশ্রয় নিয়েছেন।

গত ৬ মাসে সুগন্ধা নদী ভাঙনে নদীতে চলে গেছে ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর (দোয়ারিকা) সেতুর পূর্ব প্রান্তের গাইড ওয়াল পাইলিং, মহিষাদী জামে মসজিদ, সরকারি আবুল কালাম কলেজ সংযোগ সড়কসহ বেশ কিছু স্থাপনা ও কয়েকশ’ একর ফসলি জমিসহ বসত বাড়ি। সুগন্ধা, সন্ধ্যা ও আড়িয়ালখাঁ নদীর ভয়াবহ ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে মহিষাদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মসজিদ, আবুল কালাম ডিগ্রি কলেজ, জামেনা খাতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পূর্ব ক্ষুদ্রকাঠি গ্রাম, চরসাধুকাঠি মাদ্রাসা, শত বছরের ঐতিহ্যবাহী বাবুগঞ্জ বাজার, মীররগঞ্জ ফেরিঘাট ও বাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা।
এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু বলেন, বাবুগঞ্জ-মুলাদী উপজেলা নদী ভাঙন প্রতিরোধে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। অচিরেই ভাঙন প্রতিরোধে কাজ শুরু করা হবে।