দাবি আদায়ে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক সড়ক অবরোধ

প্রকাশিত: ১০:৩০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চার দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে বরিশাল-কুয়াকাটা-ঝালকাঠি মহাসড়কে অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছেন পলিটেকনিক শিক্ষার্থীরা। তাদের ঘণ্টাব্যাপী অবরোধের কারণে সড়কের দুই পাশে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন পড়ে যায়। সৃষ্টি হয় সীমাহীন যানজটের। পরে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের অনুরোধে সড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেন শিক্ষার্থীরা। ফলে দীর্ঘ এক ঘণ্টা পরে বরিশাল-কুয়াকাটা-ঝালকাঠি মহাসড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়। এর আগে শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে মহাসড়কের সিঅ্যান্ডবি রোডের ১ নম্বর পুলের ওপর বরিশাল সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসহ সকল বেসরকারি পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে এ অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হয়। তাদের দাবিগুলো হলো- সেশনজট নিরসন করা, প্রথম, তৃতীয়, পঞ্চম ও সপ্তম পর্বের ক্লাস চালু করে শর্ট সিলেবাসে পরীক্ষা গ্রহণ, অতিরিক্ত ফি প্রত্যাহার এবং প্রাইভেট পলিটেকনিকে সেমিস্টার ফি অর্ধেক করা ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিপ্লোমা শিক্ষার্থীদের জন্য আসন বরাদ্দ রাখা।

শিক্ষার্থীরা তাদের চার দফা দাবি তুলে ধরে বলেন, ‘আমরা সেশন জটের শিকার হচ্ছি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আমাদের কাছ থেকে ফি আদায় করছে। এসব কারণে আমাদের পিঠ এখন দেয়ালে ঠেকে গেছে। তাই সমস্যা সমাধানে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সড়ক অবরোধ কর্মসূচি দিতে বাধ্য হয়েছি।

তারা বলেন, ‘আমাদের চার দফা দাবি পুরোপুরি যৌক্তিক। তাই এই দাবি কর্তৃপক্ষকে মেনে নিতে হবে। তা না হলে আরও কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো। এদিকে, শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে মহাসড়কের সিঅ্যান্ডবি সড়কের দুই পাশে ছোট-বড় যানবাহনের দীর্ঘ লাইন পড়ে যায়। খবর পেয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে এবং তাদের দাবির বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে আশ্বস্ত করলে অবরোধ তুলে নেন শিক্ষার্থীরা।

কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নুরুল ইসলাম বলেছেন, শিক্ষার্থীরা চার দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে। পরে তাদের বুঝিয়ে শুনিয়ে জনসাধারণের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে অবরোধ তুলে নেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, চার দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে গত কয়েক দিন ধরেই আন্দোলন কর্মসূচি পালন করে আসছেন সরকারি ও বেসরকারি পলিটেকনিক শিক্ষার্থীরা। কর্মসূচির অংশ হিসেবে ইতিপূর্বে নগরীর সদর রোডস্থ অশ্বিনী কুমার হলের সামনে মনাববন্ধন এবং পরে বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা।